মুক্তিপণ না দিয়ে পুলিশকে জানানোয় অপহৃত শিশুকে হত্যা, চালানো হয় যৌন নির্যাতনও

|

নিহত শিশু আরিফুজ্জামান।

স্টাফ করেসপনডেন্ট, দিনাজপুর:

অপহরণের দু’দিন পর ৮ বছরের এক শিশুর পুঁতে রাখা বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই শিশুর নাম আরিফুজ্জামান। সে দিনাজপুরের খানসামার খামারপাড়া ইউনিয়নের কায়েমপুর ডাক্তারপাড়া মহল্লার বাসিন্দা কৃষক আতিউর রহমানের ছেলে। শিশুটি স্থানীয় একটি মাদরাসার ২য় শ্রেণির ছাত্র ছিল আরিফুজ্জামান। এরই মধ্যে শরিফুল ইসলাম নামের এক কলেজছাত্রকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার শাহ ইফতেখার আহমেদ পিপিএম তার কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান। তিনি জানান, গত শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) বিকালে মাঠে খেলতে গিয়ে অপহরণের শিকার হয় শিশুটি। ওইদিন রাত ৮টার দিকে শিশুটির বাবার মোবাইল ফোনে কল দিয়ে মুক্তিপণ হিসেবে ১ লাখ টাকা দাবি করে অপহরণকারী। এ ব্যাপারে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন শিশুর পিতা। তবে মুক্তিপণ না দিয়ে বিষয়টি পুলিশকে জানানোয় অপহরণকারী ক্ষিপ্ত হয়ে শিশুটিকে হত্যা করে। হত্যার আগে শিশুটির উপর যৌন নির্যাতন চালানো হয়েছে বলেও জানা গেছে।

তবে পুলিশ মোবাইল ট্র্যাক করে গোয়ালডিহী বিএম কলেজের কম্পিউটার ট্রেডের ছাত্র শরিফুল ইসলামকে আটক করে। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী রোববার দিবাগত রাত ২টার দিকে শরিফুলের ভাড়া বাসার আঙিনায় বস্তাবন্দি অবস্থায় পুঁতে রাখা শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য সোমবার শিশুটির মরদেহ দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply