বিশ্বকাপে অঘটনের ইতিহাস

|

ছবি: সংগৃহীত

নাটকীয়তায় ভরপুর কাতার বিশ্বকাপ একের পর এক জন্ম দিচ্ছে অঘটনের। প্রথম ম্যাচে আর্জেন্টিনার পরাজয় থেকে শুরু করে গ্রুপ পর্ব থেকে জার্মানদের বিদায়। বিশ্বকাপের এবারের আসর তাই হিসাব নিকাশ পালটে দিচ্ছে ফুটবল বোদ্ধাদের। তবে বিশ্বকাপের আসরে এর আগেও ঘটেছে নানা অঘটন আর লজ্জার ইতিহাস।

অঘটন, নাটক, ম্যাজিক, চমক। কাতার বিশ্বকাপের শিরোনামে প্রতিনিয়ত যায়গা করে নিচ্ছে এই শব্দগুলো।

প্রায় আড়াই বছর ধরে ৩৬ ম্যাচ টানা অপরাজিত থাকা আর্জেন্টিনা মরুর বুকে শুরুর দিনই হেরে বসে সৌদি আরবের কাছে। সাবেক ইংলিশ ফুটবলার গ্যারি লিনেকার একবার বলেছিলেন- ফুটবল একটি সরল খেলা । যেখানে ২২ জন বল তাড়া করে এবং শেষে এসে জেতে জার্মানরা। সেই জার্মান মেশিন গুঁড়িয়ে দিলো জাপানের ব্লু সামুরাইরা।

ছবি: সংগৃহীত

এছাড়া মরক্কোর কাছে ধরাশায়ী র‍্যাঙ্কিংয়ের ২ নাম্বার দল বেলজিয়াম। তিউনিশিয়ার কাছে ফ্রান্স কিংবা জাপানের কাছে স্পেনের পরাজয় হতবাক করে দেয় ফুটবল বোদ্ধাদের।

ঘেটে দেখা যাক বিশ্বকাপ ইতিহাসের অন্যান্য আসরের বড় অঘটনগুলো। বিশ্বকাপের প্রথম অঘটন ধরা হয় ১৯৫০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ১ গোলে ইংল্যান্ডের হেরে যাওয়াকে। সেবার ইংল্যান্ড আর পরের পর্বে যেতে পারেনি। পরের অঘটন ১৯৬৬ সালের। সেবার ইতালি হেরে যায় উত্তর কোরিয়ার কাছে। সেটাই ছিল কোরিয়ার প্রথম বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া। ১ গোলে হেরে সেবার ইতালি প্রথম পর্ব থেকেই বাদ পড়েছিল।

ছবি: সংগৃহীত

১৯৮২ সালের বিশ্বকাপ ঘিরে আছে অঘটন আর লজ্জার ইতিহাস। সেবার ফুটবলের মহাশক্তি জার্মানি পরাজিত হয় আলজেরিয়ার কাছে। তবে আলজেরিয়াকে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় করার জন্য পরের ম্যাচে জার্মানির ১ গোলের পর দুই দলের কেউই আর গোল করতে আগ্রহী হয়নি। গোল পার্থক্যে আলজেরিয়া বাদ পড়ার পর থেকে গ্রুপ পর্বের শেষ খেলা একই সময়ে আয়োজন করে আসছে ফিফা।

ম্যারাডোনার আর্জেন্টিনা ১৯৯০ সালে এসেছিল বিশ্বকাপ ধরে রাখতে। কিন্তু প্রথম খেলাতেই আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে অঘটন ঘটায় ক্যামেরুন। গোল দেওয়ার পরে রজার মিলারের সেই কোমর দোলানো নাচ আজও বিখ্যাত। সেবারই প্রথম খেলায় হেরেও ফাইনালে যায় আর্জেন্টিনা।

ছবি: সংগৃহীত

ফ্রান্স ছিল ১৯৯৮ বিশ্বকাপ ও ২০০০ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়ন। ২০০২–এর শিরোপা ধরে রাখার মিশনে নেমে প্রথম ম্যাচেই সেনেগালের কাছে হার। সেবার একটি গোলও দিতে না পারা ফ্রান্স বিদায় নেয় গ্রুপ পর্ব থেকে।

/আরআইএম





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply