২০১০-২২, রোমাঞ্চের পর ট্র্যাজেডিতেও সুয়ারেজের সঙ্গী ঘানা

|

ছবি: সংগৃহীত

জয় পেয়েও উরুগুয়ের স্বপ্নভঙ্গ। গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায়ের ঘণ্টা বাজতেই কান্নায় ভেঙে পড়েন লুইস সুয়ারেজ। ২০১০ সালে ঘানার বিপক্ষে লাল কার্ড কাণ্ডে নায়ক বনে যাওয়া সুয়ারেজ এবারও জয় পেয়েছে ঘানার বিপক্ষে। তবে, এবারের জয়টা আড়াল হয়ে গেছে বিষাদগাঁথায়। উরুগুয়ের স্বপ্নভঙ্গের দিনেই হয়তো শেষ হলো সুয়ারেজের বিশ্বকাপ ক্যারিয়ার।

২০১০ থেকে ২০২২- এক যুগের ব্যবধানে এসেছে উরুগুয়ের দুইটি স্মরণীয় জয়। এক জয়ের গল্পে যেখানে আছে উল্লাস গাঁথা, আরেক জয়ে আছে বিষাদের গল্প। এক বিশ্বকাপে লাল কার্ড দেখে উল্লাস করেছেন সুয়ারেজ। আর এবারের বিশ্বকাপে সুয়ারেজ বিদায় নিলেন অশ্রুসিক্ত চোখ।

২০১০ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ঘানার বিপক্ষে নাটকীয় এক জয় পেয়েছিল উরুগুয়ে। সেই ম্যাচে হাত দিয়ে গোল ঠেকিয়ে লাল কার্ড দেখেছিলেন সুয়ারেজ। পেনাল্টি পেয়েও গোল মিস করেন আসামোয়াহ জিয়ান। মাঠের বাইরে থেকেই উল্লাসে নেচে উঠেন সুয়ারেজ। ঘানার কাছে খলনায়ক বনে যাওয়া সুয়ারেজ তখন উরুগুয়ের জয়ের নায়ক। সেই ম্যাচে পেনাল্টিতে ৪-২ গোলে জয় পেয়েছিলো লা সেলেস্তেরা।

১২ বছর পর সেই বিশ্বকাপের মঞ্চে আবারও উরুগুয়ের জয়, প্রতিপক্ষ এবারও ঘানা। তবে, এই জয়টা এবার আর পরিণত হয়নি উল্লাসে। রচিত হয়েছে এক হৃদয়ভাঙার গল্প। জয় নিয়েও গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হলো দলটাকে।

এক যুগের ব্যবধানে একই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে সুয়ারেজের দুই ভিন্ন চিত্র। জার্সিতে মুখ ঢাকলেও, আড়াল করতে পারেননি শিশুসুলভ কান্না। যে কান্না হৃদয় ছুয়েছে লাখো ভক্তের। উরুগুয়ের স্বপ্নভঙ্গের দিনেই হয়তো শেষ হলো সুয়ারেজের বিশ্বকাপ ক্যারিয়ার।

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply