শিশু আয়াত হত্যা নিয়ে পিবিআই প্রধানের আবেগঘন স্ট্যাটাস

|

ছবি: সংগৃহীত

বুধবার (৩০ নভেম্বর) বিকেলে আলীনা ইসলাম আয়াতের (৫) খণ্ডিত ২টি পা উদ্ধার করে পিবিআই চট্টগ্রাম মেট্রো। বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) পাওয়া গেছে আয়াতের খণ্ডিত মাথা।

এ বিষয়ে পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি পোস্ট দিয়েছেন।

পোস্টে তিনি বলেন,’আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতায় দেখেছি বিশ্বকাপ ফুটবলে আমার দেশের আর্জেন্টাইন সমর্থকরা অন্য যেকোনো দেশের সমর্থকদের চেয়ে বেশি আবেগপ্রবণ। গত কয়েকদিন আর্জেন্টিনার ভক্তদের কেটেছে দারুণ উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে এবং আজ মধ্যরাত ছিল তাদের জন্য উৎসব ও উন্মাদনার। আর্জেন্টিনা ফিরে এসেছে স্ব-মহিমায়। বিগত ৭ দিন ধরে পিবিআই চট্টগ্রাম মেট্রোর হার না মানা সন্ধান অভিযান চলাকালে গতকাল বিকেলে আলীনা ইসলাম আয়াতের (৫) খণ্ডিত ২টি পা উদ্ধার হয় যা তার মৃত্যুর ১৫ দিন পরও আশ্চর্যজনকভাবে সতেজ ছিল!’

তিনি আরও বলেন, ‘আজ সকালে পাওয়া গেলো আয়াতের নিষ্পাপ মুখের খণ্ডিত মাথাটি, মায়ের বেধে দেয়া নীল ক্লিপটি এখনো চুলে গেঁথে আছে। এ নীল তো আর্জেন্টিনার রঙ! মেসির আর্জেন্টিনা বা তাদের কোনো সমর্থক কি জানেন, বাংলাদেশের এক ক্ষুদে দেবশিশু তার প্রিয় দলের বিজয় দেখার জন্য গত রাতেও সাগর তীরের একটি সুইসগেটের প্রকোষ্ঠে হিমশীতল জলের তলে অপেক্ষায় ছিল। অভিমানী আয়াতের অপাপবিদ্ধ মুখটি যেন বারবার বলতে চাইছে- এতকিছু পার, কই আমাকে তো রক্ষা করতে পারলে না!’

পোস্টের শেষে তিনি আয়াতের সকল আত্মীয়স্বজন, সাগর পাড়ের মানুষ, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, গণমাধ্যম কর্মী, এবং র‍্যাব ও সিএমপিদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তাদের সহযোগিতা ছাড়া এ তল্লাশি কার্যক্রম সফল হতো না।

ফিরে দেখা: নিখোঁজের ৯ দিন পর মিললো শিশু আয়াতের ছয়খণ্ড দেহ

উল্লেখ্য, মুক্তিপণ দাবির উদ্দেশ্যে গত ১৫ নভেম্বর আয়াতকে অপহরণ করা হয়। এসময় সে চিৎকার করলে প্রথমে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। এরপর মরদেহ রাখা হয় বাসার টয়লেটে। পরে মরদেহ কেটে খণ্ডিত করে দুটি ব্যাগে নিয়ে বেড়িবাঁধ এলাকায় সাগরে ফেলে দেয় আবির।

/এনএএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply