বরেণ্য চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানের পালিত কন্যা নিহার বালা আর নেই

|

নড়াইল প্রতিনিধি:

বরেণ্য চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানের পালিত কন্যা নিহার বালা আর নেই। বুধবার (৩০ নভেম্বর) নড়াইল সদর হাসপাতালে তার মৃত্যু ঘটে। দীর্ঘ ৯ বছর চোখের দৃষ্টিহানী, শ্বাসকষ্টসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন তিনি।

অসুস্থ অবস্থায় আজ দুপুর ১টা ৩০ মিনিটের দিকে নিহার বালাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে দুপুর ২টার দিকে মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর। তিনি এক নাতি সন্তানসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

বরেণ্য চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানকে দীর্ঘ দুই দশক সেবাযত্ন ও ভালোবাসায় আগলে রেখেছিলেন নীহার বালা সাহা। তিনি সুলতানের বাউণ্ডুলে জীবনকে নিয়ন্ত্রণ করে ছবি আঁকার উৎসাহ যুগিয়েছেন। পারিবারিক সমস্ত কাজ, শিল্পীর চিড়িয়াখানার পশু পাখিদের সেবাযত্ন, শিল্পীর অসুস্থতা এবং দৈনন্দিন জীবন-যাপনে একমাত্র সেবাময়ী হয়ে নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন তিনি। শিল্পীর মৃত্যুর পর নিহার বালার আর্থিক সংকট শুরু হয়। অশীতিপর নীহার বালা অর্থাভাবে ছানি অপারেশন করতে না পারায় ৯ বছর দৃষ্টিহীন ছিলেন।

জানা যায়, শিল্পী সুলতান শহরের কুরিগ্রামস্থ একটি দ্বিতল জরাজীর্ণ ও ভাঙা বাড়িতে (বর্তমান শিশুস্বর্গ ভবন) থাকতেন। নিহার বালার স্বামী হরিপদ সাহা ও দুই কন্যাসহ সুলতানের বাড়ির পাশে বসবাস করতেন। শিল্পীর সাথে হরিপদ সাহার ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের সুবাদে নিহার শিল্পী সুলতানকে কাকু বলে ডাকতেন। সুলতানও তাকে মেয়ের মতো স্নেহ করতেন। ১৯৭৫ সালের দিকে স্বামীর আকস্মিক মৃত্যুর পর ছোট ছোট দু’মেয়ে নিয়ে আর্থিক অনিশ্চয়তার জীবন-যাপন করেন নিহার বালা। এ সময় আমশয়সহ নানা মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হয়ে ভুগতে শুরু করেন শিল্পী সুলতান। তখন অসহায় শিল্পীর সেবায় এগিয়ে আসেন নিহার বালা। সেই থেকে নিহার বালা ছোট ভাই দুলাল সাহা এবং শিশু দু’কন্যা বাসনা ও পদ্মকে নিয়ে শিল্পীর বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। বর্তমানে তিনি সুলতান কমপ্লেক্সের একটি জায়গায় সরকার থেকে দেয়া একটি টিনসেড ঘরে নাতি ছেলেসহ পরিবার নিয়ে বসবাস করছিলেন।

উল্লেখ্য, বরেণ্য শিল্পী এস এম সুলতান ১৯২৪ সালের ১০ আগস্ট শহরের মাছিমদিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯৯৪ সালের ১০ অক্টোবর তার প্রয়াণ ঘটে।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply