মাদক সেবনের দায়ে থাইল্যান্ডে এক বৌদ্ধমন্দিরের সমস্ত সন্ন্যাসী প্রত্যাহার

|

ছবি: সংগৃহীত।

থাইল্যান্ডের একটি বৌদ্ধ মন্দিরের সমস্ত বৌদ্ধ সন্ন্যাসীকে মাদক সেবনের দায়ে একযোগে প্রত্যাহার করা হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের করা মাদক শনাক্তকারী পরীক্ষায় ওই বৌদ্ধ মন্দিরের চারজন সন্ন্যাসীর শরীরেই মাদক গ্রহণের আলামত পাওয়া গেছে। খবর বিবিসির।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) এ ঘটনা ঘটে থাইল্যান্ডের ফেচাবুনের উত্তর প্রদেশের একটি ছোট বৌদ্ধ মন্দিরে। এ দিন মন্দিরের চারজন সন্ন্যাসীকে মাদক পরীক্ষা করার জন্য নিকটস্থ একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যায় পুলিশ। পরীক্ষায় তাদের শরীরে মাদকের অস্তিত্ব পাওয়ায় প্রধান সন্ন্যাসীসহ সকলকেই প্রত্যাহার করা হয়েছে।

এদিকে, একটি মন্দিরের সমস্ত সন্ন্যাসীকে বরখাস্ত করায় প্রার্থনাস্থল রীতিমতো ফাঁকা। ফলে ওই অঞ্চলের মানুষের প্রার্থনা করাই বন্ধের উপক্রম হয়েছে। এতে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রাও। অবশ্য দ্রুতই মন্দিরটিতে নতুন সন্ন্যাসী নিয়োগ দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

সম্প্রতি থাইল্যান্ডে মাদক, বিশেষ করে মেথামফেটামিন সেবনকারীর সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। মিয়ানমার থেকে লাওস হয়ে বিপুল পরিমাণ মেথামফেটামিন প্রবেশ করছে দেশটিতে, যা সাধারণ মানুষের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ছে দ্রুত বেগে। এমনকি রাস্তাঘাটে জনসম্মুখেই ৫০ বাত বা ১৪৩ টাকায় অতি সস্তায় বিক্রি হচ্ছে এসব মাদকদ্রব্য। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘও।

তবে মাদকের বিরুদ্ধে এখন কঠোর অবস্থান নিয়েছে থাই সরকার। দেশটি থেকে মাদক সেবনকারী ও মাদক কারবারীদের নির্মূলে কঠোর নীতি গ্রহণ করা হয়েছে। তবে এই মন্দিরের সন্ন্যাসীদের প্রতি প্রশাসনের সন্দেহের কারণ এখন পর্যন্ত জানা যায়নি।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply