ম্যারাডোনাকে হারানোর ২ বছর

|

ছবি: সংগৃহীত।

আজ থেকে ঠিক ২ বছর আগে ২০২০ সালের ২৫ নভেম্বর ফুটবল জগতে আছড়ে পড়ে শোকের কালো ছায়া। এ দিনই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছিলেন ফুবলের অবিসংবাধিত নায়ক দিয়েগো আরমান্দো ম্যারাডোনা। গোটা বিশ্বকে চোখের পানিতে ভাসিয়ে সম্পন্ন হয় তার শেষ যাত্রা।

বুয়েন্স আয়ার্সে হার্ডিন বেসা ভিস্তায় মাটির নিচেই শুয়ে আছেন এই কিংবদন্তি। বৃহস্পতিবার থেকেই তার সমাধি সৌধটা ফুলে-ফুলে ঢেকে গেছে। ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের ভালোবাসায় আজও সিক্ত ম্যারাডোনা।

২৪ বছর বয়সে ১৯৮৪ সালে দুর্বার গতি নিয়ে দক্ষিণ ইতালির সাদামাটা দল নাপোলিতে যোগ দেন দিয়েগো আরমানদো ম্যারাডোনা। ক্লাব ফুটবলের উজ্জ্বল নক্ষত্র ম্যারাডোনা, তার একক নৈপুণ্যে অখ্যাত নাপোলি ঘরে তোলেন ইউরোপ দ্বিতীয় সেরা ট্রফি ইউরোপা লিগ এবং সেই সঙ্গে দুই দুইবার হাত উঁচিয়ে ধরেন ইতালীয় ‘সিরি আ’ ট্রফিও। এরপরই বিশ্বময় জ্বলজ্বল করে ওঠে নাপোলি ক্লাবের নাম।

নাপোলি ছিল ফুটবল ঈশ্বর ম্যারাডোনার ক্যারিয়ারের স্বর্ণযুগ। এই ক্লাবের হাত ধরেই উড়ান দিয়েছিলেন ম্যারাডোনা। এ ফুটবল তারকার প্রতি সম্মান দেখিয়ে তার গায়ে জড়ানো ১০ নম্বর জার্সি আর কোনো খেলোয়াড়কে না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্লাব। তার মৃত্যুর পর নাপোলির ‘সাম পাওলো’ স্টেডিয়ামের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘দিয়েগো আরমানদো ম্যারাডোনা স্টেডিয়াম’।

ফুটবলের দুনিয়ায় ম্যারাডোনা হলেন অবিনশ্বর এক ব্যক্তিত্ব। শুধু দুই বছর কেনো, প্রয়াণের শতবর্ষ পরও তার নাম জ্বলজ্বল করবে ফুটবল জগতে। কারণ কীর্তিমানের সৃষ্টির কোনো মৃত্যু নেই।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply