৭৮ বছর পর বিশ্বযুদ্ধে হারানো প্রেমিকার খোঁজ পেলেন ৯৯ বছরের বৃদ্ধ

|

ছবি: সংগৃহীত

৭৮ বছর পর বিশ্বযুদ্ধে হারানো প্রেমিকার খোঁজ পেলেন ৯৯ বছরের বৃদ্ধ, বিয়েতে রাজি ৯২-এর বছরের প্রেমিকা।

বিবিসি নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বযুদ্ধের সময় পরিচয় তাদের, যুদ্ধের কারণেই বিচ্ছেদ। কিন্তু তারপরেও ৭৮ বছর ধরে এক সৈনিক নিজের ওয়ালেটে রেখে দিয়েছিলেন প্রেমিকার ছবি। ৯৯ বছর বয়সে পৌঁছে আবার তার দেখা পেলেন বৃদ্ধ!

প্রেমিকের নাম রেজিনাল্ড পাই, প্রেমিকার নাম হুগেত জোফ্রোয়া। ১৯৪৪ সালে ব্রিটেনের রয়্যাল ইঞ্জিনিয়ার বিভাগে ২২৪ ফিল্ড কোম্পানির হয়ে নর্ম্যান্ডির যুদ্ধে গিয়েছিলেন রেজিনাল্ড। তখন তার বয়স ২১। ওই সময়েই নর্ম্যান্ডিতে বেড়াতে গিয়েছিলেন ফ্রান্সের বাসিন্দা ১৪ বছরের হুগেত। ঘুরতে ঘুরতে কিশোরী হুগেতের প্রবল খিদে পেয়ে যায়। তখনই তার সঙ্গে দেখা হয় রেজিনাল্ডের। নিজের স্যান্ডউইচ হুগেতকে খেতে দেন রেজিনাল্ড। খাওয়ার পর সেই খাবারের কৌটোতে নিজের একটি ছবি ভরে রেজিনাল্ডকে ফেরত দেন কিশোরী। তারপর সেনাবাহিনীর সঙ্গে সেই জায়গা ছেড়ে চলে যেতে হয় রেজিনাল্ডকে। আর দেখাও হয়নি হুগেতের সঙ্গে। কিন্তু তার দেয়া সেই ছবি নিজের কাছে রেখে দেন রেজিনাল্ড।

তারপর কেটে গেছে ৭০ বছরেরও বেশি সময়। রেজিনাল্ড পরে একাধিক বার খোঁজ করেছিলেন, কিন্তু খোঁজ পাননি হুগেতের। তবু সেই ছবি নিজের কাছে রেখে দিয়েছেন। চলতি বছরের জুন মাসে সাবেক সৈনিকের এই কাহিনি শুনতে পায় এক ট্যাক্সিচালক। তিনিই নিজ উদ্যোগে সংবাদমাধ্যমে জানান বিষয়টি।

তারপর, রেজিনাল্ডের থাকা সেই ছবিটিসহ খবর প্রকাশিত হয় সংবাদপত্রে। সংবাদমাধ্যমে মায়ের ছবিটি দেখতে পায় হুগেতের কন্যা। তিনিই যোগাযোগ করে খুঁজে বের করেন রেজিনাল্ডকে। অবশেষে এই মাসেই ফ্রান্সে আসেন ৯৯-তে পা দেয়া রেজিনাল্ডে। সেখানেই প্রায় ৭৮ বছর পর দেখা হয় রেজিনাল্ড ও হুগেতের।

প্রথম বার দেখা হওয়ার সময় যে জিনিসটি রেজিনাল্ড ও হুগেতকে দিয়েছিলেন, এবারও সেই স্যান্ডউইচই হুগেতের হাতে দেন রেজিনাল্ড। দু’জনের দেখা হওয়ায় তাদের পরিবারও খুশি। হুগেত জানান, রেজিনাল্ডের থেকে বিয়ের প্রস্তাব পেলে আপত্তি নেই তার।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply