বাসরঘর থেকেই গ্রেফতার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি

|

ময়মনসিংহ ব্যুরো:

বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা ভালোভাবেই সম্পন্ন। খাওয়া-দাওয়াও শেষ। একে একে বিদায় নিলেন স্বজনরা। শ্বশুর বাড়িতেই হবে বাসর। বাসর ঘরে কনেকে বসিয়ে খবর দেয়া হলো জামাইকে। ঘরে প্রবেশ করলো বর। নতুন বউয়ের খোঁজখবর নিচ্ছিলেন বর।

সময় তখন রাত তিনটা। এমন সময় দরজায় কড়া নাড়ার শব্দ। দরজা খুলুন আমরা পুলিশ। ময়মনসিংহে বাসর ঘর থেকে এভাবেই এক মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতার হওয়া মনির হোসেনকে গতকাল বৃহস্পতিবার আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার দত্ত গ্রামের ইসমত আলীর বাড়িতে বাসরঘর থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

মনির উপজেলার সরিষা ইউনিয়নের বৈরাটি গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল গফুর তালুকদারের ছেলে।

পুলিশ জানায়, বুধবার রাতে উপজেলার দত্ত গ্রামের ইসমত আলীর মেয়ের সাথে মনিরের বিয়ে হয়। আসামির অবস্থানের খবর পেয়ে রাতেই গ্রেফতার অভিযানে নামে পুলিশ।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আহমদ কবির হোসেন জানান, আদালতের গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পর থেকেই মনির হোসেন পলাতক ছিলেন। খবর পেয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আরো আগে খবর পেলে বিয়ের আগেই গ্রেফতার করার চেষ্টা করতাম।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালের ১৩ আগস্ট রাতে ঢাকার গুলিস্তান সিদ্দিকবাজারে আলমগীর হোসেন নামে এক দোকান কর্মচারীকে ছিনতাইকারীরা গলাকেটে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে কদমতলী থানায় মনির হোসেনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

এরপর ২০১৭ সালের ২৭ জুলাইয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটনের বিশেষ দায়রা জজ আদালতের হাকিম বিচারক মনির হোসেনসহ তিনজন আসামিকে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেন।









Leave a reply