ফেসবুক-টুইটার ব্যবহারে ট্যাক্সের পক্ষে উগান্ডার প্রেসিডেন্টের সাফাই

|

ফেসবুক-টুইটার ব্যবহারে ট্যাক্স আরোপে নিজ সরকারের সিদ্ধান্তের পক্ষে সাফাই গাইলেন উগান্ডার প্রেসিডেন্ট যুয়েরি মুসেভিনি। তার মতে সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করা হয় মূলত ‘মিথ্যা প্রচারের জন্য’।

গত মে মাসে উগান্ডা সরকার নতুন আইন পাস করে। যাতে বলা হয়, সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারীরা অনলাইনে নানা প্লাটফর্ম ব্যবহারের বিনিময়ে দৈনিক ৫ সেন্ট (বাংলাদেশে টাকায় ৪ টাকা প্রায়) করে সরকারকে ট্যাক্স দিতে হবে।

যেসব ওয়েবসাইটে প্রবেশের জন্য ট্যাক্স গুনতে হবে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে ফেসবুক, টুইটার, ওয়াটসঅ্যাপ, গুগল হ্যাঙআউট, ইউটিউব, ইয়াহু ম্যাসেঞ্জার ইত্যাদি।

চলতি জুলাই মাসের ১ তারিখ থেকে ট্যাক্স কার্যকর হয়েছে। দেশটির বিভিন্ন মোবাইল সেবা প্রদানকারী নেটওয়ার্ক ব্যবহারকারীদের একাউন্ট থেকে দৈনিক হারে টাকা কেটে সরকারি কোষাগারে জমা দেবে। এর ফলে মোবাইল ডাটার পেছনে গড়ে একজন সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারী যে পরিমাণ খরচ হয় তা ২০ শতাংশ বেড়েছে।

নিজের টুইটার একাউন্টে পোস্ট করা এক বিবৃতিতে মুসেভিনি বলেন, ‘যারা জীবনকে খুব উপভোগ করছেন সামাজিক মাধ্যম তাদের এক ধরনের বিলাসিতা। এছাড়া খারাপ মানসিকতার কিছু লোক এটি ব্যবহার করে। ফলে যে কোনো দিক থেকে বিবেচনা করলে এটিতে ট্যাক্স আরোপ যৌক্তিক।’

তবে বিবিসি জানাচ্ছে, ট্যাক্স আরোপ ও মুসেভিনির বক্তব্যে সামাজিক মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। অনেকে ট্যাক্স ফাঁকি দেয়ার জন্য ভিপিএনের সহায়তায় ইন্টারনেট ওইসব ওয়েবসাইটে ঢুকছেন। তাদের মতে, মূলত সরকারের সমালোচনা বন্ধের উদ্দেশ্যেই সামাজিক মাধ্যমের ব্যবহার কমাতে চায় সরকার।









Leave a reply