হামলা-মামলার শিকার শিক্ষার্থীদের আইনি সহায়তা দিতে চান আইনজীবীরা

|

কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশ নেয়ায় ছাত্রলীগের হামলা ও মামলার শিকার শিক্ষার্থীদেরকে পরিপূর্ণ আইনি সহায়তা দিতে চান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবীদের অনেকে। এমনটা জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টেরই আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া। আজ সোমবার তিনি সাংবাদিকদের কাছে এ কথা জানান।

ব্যারিস্টার বড়ুয়া বলেন, হামলায় সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর দায়িত্ব পালনের ব্যর্থ হয়েছেন। যারা হামলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা নেই। কিন্তু যারা হামলার শিকার তাদের বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে। এমনকি ছাত্রীদের ওপর হামলা হচ্ছে। আর যেভাবে আন্দোলনকারীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে সেটা যথাযথ আইনি প্রক্রিয়া মেনে হচ্ছে না। যেটা শিক্ষার্থীসহ সকলের জন্য গভীর উদ্বেগের বিষয়।

সম্প্রতি কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা নুরুল হক নুরুকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পিটিয়ে মারাত্মক জখম করে ছাত্রলীগ কর্মীরা। এসময় আন্দোলনরত আরো শিক্ষার্থীরা আহত হয়েছেন। সর্বশেষ রোববার দিবাগত রাতে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা নুরুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

চিকিৎসা না দিয়ে হাসপাতাল থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ করেছেন কোটা সংস্কার আন্দোলনের এই নেতা। তিনি জানান, রোববার রাতে রাজধানীর আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাকে জোর করে বের করে দেয়া হয়েছে।

হাসপাতাল থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের নুরুল হক বলেন, প্রথমে পুলিশ আমাকে গ্রেফতারের কথা বলে চলে যায়। এর কিছুক্ষণ পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোন ধরনের নোটিশ ছাড়াই চিকিৎসা না দিয়ে বের করে দেয়।

তবে এ বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

এর আগে আন্দোলনরত অবস্থায় সংঘর্ষে আহত হয়ে নুরুল হক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হলে তাকে সেখানেও চিকিৎসা নিতে দেয়া হয়নি। পরবর্তীতে ধানমন্ডির বেসরকারি আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

এছাড়া কোটা সংস্কার আন্দোলনের আরেক নেতা মুহাম্মদ রাশেদ খানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ফেসবুক লাইভে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে। গতকাল রোববার শাহবাগ এলাকায় বেশ কয়েকজন আন্দোলনকারীর ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ কর্মীরা। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় এক নেতার দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply