মেসি, না মুসা?

|

আর্জেন্টিনার বাঁচা-মরার লড়াই আজ। নাইজেরিয়ারও তা-ই। ফলে কেউ কাউকে ছাড় দিয়ে কথা বলবে না আজ। মঙ্গলবার রাত ১২টায় মুখোমুখি হবেন মেসি আর মুসারা। বিশ্বকাপে টিকে থাকার এই লড়াইয়ে চোখ থাকবে মূলত দুই দলের দুইজনের ওপর। লিওনেল মেসি আর ‘লিওনেল মুসা’র ওপর। আইসল্যান্ডের বিপক্ষে জোড়া গোলের পর নাইজেরিয়ার আহমেদ মুসাকে অনেকে ‘লিওনেল মুসা’ বলেই ডাকছেন।

মেসির দলের রক্ষণভাগের অবস্থা চলতি টুর্নামেন্টে যাচ্ছেতাই। ফলে আজ মূলত আকাশীরঙাদের চ্যালেঞ্জ হবে মুসাকে ঠেকানো। অন্যদিকে ছিটকে পড়ার শঙ্কায় থাকা মেসি আজ ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারেন। তাকে কিভাবে আটকানো যায় সেটাই হয়ে ওঠবে সুপার ঈগলদের চিন্তার বিষয়।

অবশ্য মেসি-মুসার লড়াইয়ে ইতিহাস মুসার পক্ষে কথা বলছে! দুটি বিশ্বকাপে গোল করা প্রথম নাইজেরিয়ান এই স্ট্রাইকার মেসির দলকে সামনে পেলেই ঝলসে ওঠেন! হোক সেটি আর্জেন্টিনা কিংবা বার্সেলোনা। ২০১৪ সালের ব্রাজিল বিশ্বকাপে পোর্তো আলেগ্রেতে গ্রুপ ম্যাচে আর্জেন্টিনার কাছে ৩-২ গোলের হারে ‘সুপার ইগল’দের দুইবারের লক্ষ্যভেদ মুসার পায়েই।

আর ২০১৫-১৬ ফুটবল মৌসুম শুরুর আগে মেসির বার্সেলোনার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে লিস্টার সিটির ৪-২ গোলের হারেও ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের দলটির হয়ে দুটি গোলই করেছিলেন মুসা।

নিজের দাবিকে যুক্তিগ্রাহ্য করে তুলতে গত বিশ্বকাপের আর্জেন্টিনা-নাইজেরিয়া এবং বার্সেলোনা-লিস্টারের প্রীতি ম্যাচের কথাও মনে করিয়ে দিয়েছেন মুসা, ‘আমি তো মনে করতে পারি, চার বছর আগে মেসি ব্রাজিলে খেলেছিলেন এবং আমি দুই গোল করেছিলাম। এবং এরপর যখন আমি লিস্টারে গেলাম, খেললাম বার্সেলোনার বিপক্ষেও। মেসি তখন মাঠে ছিলেন এবং আমি আরো দুটি গোল করেছিলাম।’

অর্থাৎ এত দিন মেসির বিপক্ষে খেলতে নামা মানেই ছিল মুসার দুই গোলের নামতা পড়ে নামা। এই নাইজেরিয়ান এবার বাঁচা-মরার ম্যাচেও যে একই সাফল্যের পুনরাবৃত্তি চাইবেন, তাতে আর আশ্চর্যের কী! আইসল্যান্ডের বিপক্ষে দুই গোলে দলকে জেতানোর পর ম্যাচসেরার পুরস্কার নিয়ে হাসতে হাসতে বলছিলেন সে কথাও, ‘এই ম্যাচটির (আর্জেন্টিনার বিপক্ষে) গুরুত্ব আমরা সবাই জানি। এটা রীতিমতো ডু অর ডাই ম্যাচ। আমার মনে হয় এই ম্যাচটিতে ঘটতে পারে যেকোনো কিছুই। সম্ভবত আমি আরো দুটি গোলই করতে যাচ্ছি।’









Leave a reply