ভাসানচরে শতভাগ রোহিঙ্গা শিশু স্কুলগামী, পড়ানো হচ্ছে মিয়ানমারের পাঠক্রমে

|

আরিফুর রহমান সবুজ:

ভাসানচরে স্থানান্তরিত রোহিঙ্গা শিশুদের প্রায় শতভাগই স্কুলে যাচ্ছে। দাতা সংস্থার অর্থায়নে সেখানে স্থাপিত ২৮টি স্কুলে ৬ষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত নিয়মিত পাঠদান চলে। স্কুলগুলোর শিক্ষকরাও সবাই মিয়ানমারের বাস্তচ্যুত নাগরিক, কারিকুলামও সেদেশের। বাস্তুচ্যুত হলেও এখনও মিয়ানমারের জাতীয় সংগীত গেয়েই দিন শুরু হয় সেখানকার শিশুদের।

ভাসানচরে স্থানান্তরিত এসব রোহিঙ্গা শিশুদের আনন্দদায়ক পাঠদান নিশ্চিতে এখানকার ক্লাস্টারগুলোতে স্থাপন করা হয়েছে ২৮টি স্কুল। বয়স এবং দক্ষতাভেদে ৬টি গ্রেডে অর্থাৎ ৬ষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত তাদের পাঠদানের ব্যবস্থা করেছে বাংলাদেশ সরকার।

ইউনিসেফসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার অর্থায়নে তাদের ১০টি সহযোগী উন্নয়ন সংস্থার মাধ্যমে এসব স্কুল পরিচালিত হচ্ছে। তাদের হিসাবে ভাসানচরের শতভাগ শিশু এখন স্কুলমুখী। ভাসানচরে স্থানান্তরিত করা হয়েছে ৩০ হাজার ৮৬১ জন মিয়ানমারের নাগরিককে। ভাসানচরে ১৩ হাজার ৮৪২ জন শিশুর মধ্যে ৪ হাজার শিশুর বয়স ৫ বছরের নিচে। আর বাকি ৮ হাজার ১৩৬ জন শিশুই স্কুলগামী।

ভাসানচরে এই ২৮টি স্কুলে নিয়োজিত ১৪০ জন শিক্ষকের সবাই মিয়ানমারের নাগরিক। শরাণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মিজানুর রহমান জানালেন, বাংলাদেশ সরকার তাদের সহজ পাঠদান নিশ্চিতে স্কুল এবং শিক্ষক বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে। মিয়ানমারের কারিকুলাম অনুযায়ী আগামী বছরের মধ্যে ভাসানচরে গ্রেড টেন পর্যন্ত শিক্ষা কার্যক্রম বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply