জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয়; আশুগঞ্জ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৫টি ইউনিটই বন্ধ

|

ফাইল ছবি

স্টাফ করেসপনডেন্ট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া:

জাতীয় গ্রিড লাইনে ত্রুটির কারণে আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লিমিটেডের (এপিএসসিএল) চালু ৫টি ইউনিটের উৎপাদন একযোগে বন্ধ হয়ে যায়। এতে প্রায় ৭শ‘ মেগওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে এবং বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ পুরো এলাকার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। তবে বিকেল সাড়ে ৫টায় এপিএসসিএল কর্তৃপক্ষ জানায়, ইতোমধ্যে বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়া গেছে এবং বন্ধ হয়ে যাওয়া ইউনিটগুলো চালু করার প্রক্রিয়া শুরু করা হচ্ছে। তবে ঠিক কখন এসব ইউনিট আবারও চালু হবে তা নিশ্চিত করে জানাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

এপিএসসিএল ও পিজিসিবি সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় গ্রিড লাইনে ত্রুটি দেখা দেয়ায় মঙ্গলবার দুপুর দুইটার দিকে এপিএসসিএল এর আওতাধীন চালু থাকা ৪৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট (নর্থ ও সাউথ), ২২৫ মেগাওয়াওয়ট ক্ষমতাসম্পুর্ণ কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট, ২০০ মেগাওয়াটের ইউনাইটেড পাওয়ার প্লান্ট এবং ৫৩ মেগাওয়াটের গ্যাস ইঞ্জিন এক যোগে বন্ধ হয়ে যায়।

এ সময়, ৪৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট (নর্থ) এ প্রায় ৩২০ মেগাওয়াট, ৪৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট (সাউথ) এ প্রায় ১৭৩ মেগাওয়াট, ২২৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট এ ১৭০ মেগাওয়াট, ২০০ মেগাওয়াটের ইউনাইটেড এ ৮ মেগাওয়াট এবং ৫৩ মেগাওয়াটের গ্যাস ইঞ্জিন হতে প্রায় ৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছিল। এ কারণে আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশনসহ পুরো উপজেলার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। কোনো ইউনিট এখনও চালু করা সম্ভব হয়নি।

এদিকে, গ্রিড লাইনের কোথায়, কী ধরনের সমস্যা হয়েছে তা সঠিকভাবে জানাতে না পারলেও গ্রিড লাইন চালুর প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পিজিসিবি কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লি. এর নির্বাহী পরিচালক (কারিগরি) প্রকৌশলী মো. শাহ আলম খান বলেন, গ্রিড লাইনে ত্রুটির কারণে কেন্দ্রের চালু থাকা ৫টি ইউনিট বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় ইউনিটগুলি থেকে প্রায় ৭শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছিলো।

এ ব্যাপারে এপিএসসিএল এর এমডি প্রকৌশলী এ.এম.এম. সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ইতোমধ্যে পাওয়ার (বিদ্যুৎ) পাওয়া গেছে এবং বন্ধ হওয়া ইউনিটগুলো পুনরায় চালু করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তবে কখন নাগাদ সবগুলি ইউনিট পুনরায় উৎপাদনে ফিরে আসবে তা নির্দিষ্ট করে জানাতে পারেননি তিনি।

এদিকে গ্রিড লাইনে ত্রুটির কথা স্বীকার করে পিজিসিবির মুখ্য প্রকৌশলী (চিফ ইঞ্জিনিয়ার) মো. মোরশেদ আলম বলেন, কোথায় ও কি ধরনের সমস্যা হয়েছে তা নিরূপণ ও বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে কাজ শুরু করছে কর্তৃপক্ষ।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply