ফুটবলকে বিদায় জানালেন গঞ্জালো হিগুয়েইন

|

গঞ্জালো হিগুয়েইন। ছবি: সংগৃহীত

ফুটবলকে বিদায় জানিয়ে দিলেন ইন্টার মিয়ামিতে খেলা আর্জেন্টাইন তারকা ফরোয়ার্ড গঞ্জালো হিগুয়েইন। সোমবার (৪ অক্টোবর) ১৭ বছরের ফুটবল ক্যারিয়ারের ইতি টানার ঘোষণা দেন রিয়াল মাদ্রিদ, য়্যুভেন্টাস, এসি মিলান, চেলসির মতো বিশ্বের অন্যতম কিছু বড় ক্লাবে খেলা এই স্ট্রাইকার।

৩৪ বছর বয়সী হিগুয়েইন ইন্টার মিয়ামির হয়ে চলতি মৌসুম সম্পন্ন করবেন। মেজর লিগ সকারে এখনও দুইটি ম্যাচ বাকি আছে। মৌসুমের শুরুতে ফর্ম ফিরে পেতে সংগ্রাম করা হিগুয়েইন ফিরেছেন নিজের মতো করেই। সবশেষ ১১ ম্যাচে করেছেন ১০ গোল। এই মৌসুমে ১৪ গোল ও ৩ অ্যাসিস্টের মালিক ‘এল পিপিতা’ সোমবারের প্রেস কনফারেন্সে অশ্রুসিক্ত চোখে জানিয়ে দিলেন, ইন্টার মিয়ামির হয়ে ২০২২ মৌসুমের পরই পাকাপাকিভাবে বুটজোড়া তুলে রাখবেন তিনি।

ছবি: সংগৃহীত

হিগুয়েইন বলেন, এমন একটা ক্যারিয়ার পেয়েছি, যার চেয়ে ভালো কিছু হয়তো হতে পারতো না। ফুটবল আমাকে অনেক দিয়েছে। যারা আমার উপর ভরসা রেখেছে, তাদের ধন্যবাদ জানাই। এখন সময় এসেছে বিদায় বলার।

২০০৫ সালে আর্জেন্টাইন জায়ান্ট রিভার প্লেটের জার্সিতে শুরু হয় হিগুয়েইনের ক্যারিয়ার। এরপরের বছরই ১৬ মিলিয়ন ডলারে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেন তিনি। লস ব্লাঙ্কোসদের হয়ে ২৬৪ ম্যাচে ১২১ গোল করেছেন তিনি। ৩টি লা লিগার সাথে রিয়ালের হয়ে তিনি জিতেছেন ১টি কোপা দেল রে শিরোপা। সেখানে ৭ মৌসুম কাটিয়ে ২০১৩ সালে ৫৩ মিলিয়ন ডলারে হিগুয়েইন পাড়ি জমান নাপোলিতে। সেখানেও দারুণ পারফরমেন্সের ধারা অব্যাহত রেখে ১৪৬ ম্যাচে করেন ৯১ গোল।

ছবি: সংগৃহীত

২০১৬ সালে প্রায় ১০০ মিলিয়ন ডলারে ইতালিয়ান রেকর্ড গড়ে হিগুয়েইন যোগ দেন য়্যুভেন্টাসে। প্রথম সিজনে ৩২ গোল করেন তিনি। তারপর ২০১৮-১৯ মৌসুমে ধারে খেলেন এসি মিলান ও চেলসিতে। তারপর ২০১৯-২০ মৌসুমে য়্যুভেন্টাসে ফিরে জেতেন নিজের তৃতীয় সিরি আ’ শিরোপা। তারপর পাড়ি জমান ইন্টার মিয়ামিতে। ৬৫ ম্যাচে ২৭ গোলের সাথে ১৪টি অ্যাসিস্ট রয়েছে ‘এল পিপিতা’র নামের পাশে।

ছবি: সংগৃহীত

ফুটবলকে বিদায় জানাতে গিয়ে হিগুয়েইন বলেন, খেলা চালিয়ে যাওয়ার প্রধান অনুপ্রেরণা ছিল আমার সতীর্থরা। এ মৌসুমেই আমার খারাপ দিনগুলোতে তরা ছিল পাশে। সেই সাথে ফিজিও, আমার পরিবার সবাই সাহায্য করেছে এমন সময় কাটিয়ে ওঠার ক্ষেত্রে। তাই চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই বিদায় নিতে চাই। এমনটিই আমার স্বপ্ন। চাই, সমর্থকেরা স্টেডিয়ামে আসুক। দু’টি ম্যাচ বাকি আছে এখনও। প্লে অফে যেতে পারলে গল্পটা হবে ভিন্ন, আর সতীর্থদের সাথে চ্যাম্পিয়নের মতো বিদায় নেয়া আমার স্বপ্ন।

ছবি: সংগৃহীত

আন্তর্জাতিক ফুটবলে আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিলেন গঞ্জালো হিগুয়েইন। আলবিসেলেস্তেদের হয়ে ৭৫ ম্যাচে করেছেন ৩১ গোল। তবে ফুটবল ইতিহাসে সর্বোচ্চ সম্মানের খুব কাছ থেকেই ফিরতে হয়েছে তাকে। পেনাল্টিতে দুইটি কোপা আমেরিকার ফাইনাল থেকে শূন্য হাতে ফেরার সাথে বিশ্বকাপ ফাইনালেও হিগুয়েইন ছিলেন পরাজিত দলে। তবে ক্লাব লেভেলে ৩০০’র বেশি গোল করা হিগুয়েইনকে তার প্রজন্মের অন্যতম সেরা এক ফরোয়ার্ড হিসেবেই বিবেচনা করা হয়।

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply