গোপালগঞ্জ পিটিআই’তে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ শিক্ষকদের

|

গোপালগঞ্জে পিটিআই সুপারিনটেনডেন্টের বিরুদ্ধে প্রশিক্ষণ পরিচালনায় নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি প্রশিক্ষণ নেয়া শিক্ষকদের দাবি, প্রতিবাদ করায় শৃঙ্খলা ভঙ্গসহ বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগ এনে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে সম্প্রতি চিঠি দেন পিটিআই সুপার। এরপর কেন বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে না জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিস পেয়েছেন ৫ শিক্ষক। তবে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পিটিআই সুপার।

ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গোপালগঞ্জ পিটিআই-এ সম্প্রতি প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশ নেন গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুরসহ কয়েক জেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪৪ জন শিক্ষক। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর ও ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহায়তায় এই প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

১৪ সপ্তাহের এই প্রশিক্ষণ কোর্সের জন্য বরাদ্দ অর্থ, নয়ছয়ের অভিযোগ উঠেছে। প্রশিক্ষণ নেয়া শিক্ষকদের অভিযোগ, প্রতিদিন খাবার ও আপ্যায়ন বাবদ জনপ্রতি ৬৬০ টাকা বরাদ্দ থাকলেও দেয়া হয় নিম্নমানের খাবার। এছাড়া দিন প্রতি ৮শ’ টাকা সম্মানী ভাতাসহ বিভিন্ন বিল পাসের জন্য শিক্ষকদের কাছ থেকে টাকা চাওয়ারও অভিযোগ উঠেছে পিটিআই’র সুপারের বিরুদ্ধে।

শিক্ষকদের আরও অভিযোগ, অনিয়মের প্রতিবাদ করায় ৫ জনের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গসহ নানা মিথ্যা অভিযোগ এনে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে চিঠি দেন পিটিআই সুপার। এ নিয়ে তদন্তের পর, ৫ শিক্ষককে কেন চাকরি থেকে বরখাস্ত কিংবা অন্য শাস্তি দেয়া হবে না জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিস দেয়া হয়েছে।

তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পিটিআই-এর সুপার কৃষ্ণা রানী বসু।

এর আগে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যাচের প্রশিক্ষণার্থীরাও গোপালগঞ্জ পিটিআই সুপারের বিরুদ্ধে একই ধরণের অভিযোগ করেছিলেন বলেও জানান শিক্ষকরা।

এটিএম/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply