চট্টগ্রামে ভূমি অফিসে অপমানিত হয়ে বৃদ্ধের হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুর অভিযোগ

|

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

ট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার সহকারী কমিশনার-ভূমি (এসিল্যান্ড) অফিসের দুই কর্মচারীর গালাগাল ও অপমান সইতে না পেরে এক বৃদ্ধের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। পেশায় দিনমজুর ওই বৃদ্ধের নাম আবদুল মোনাফ (৬২)।

মোনাফের বাড়ি হাটহাজারী উপজেলার উত্তর ফতেয়াবাদ পশ্চিম খাগড়িয়া ছড়ারকুল এলাকায়। গত ২৩ সেপ্টেম্বর মোনাফ হার্ট অ্যাটাকে মারা যান। আগস্টের প্রথম সপ্তাহে এসি ল্যান্ড অফিসে তার সাথে দুর্ব্যবহারের ঘটনাটি ঘটে।

মোনাফের মেয়ে আইরিন আক্তার অভিযোগ করেন, বিজয় নন্দন বড়ুয়া এবং নিউটন বড়ুয়া নামে দুই কর্মচারীর গালাগাল ও অপমানের ধকল সইতে না পেরে তার বাবা মারা গেছেন।

আইরিনের অভিযোগ, গত আগস্টের প্রথম সপ্তাহের একদিন মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ার কারণ জানতে গিয়ে বিজয় নন্দন বড়ুয়া এবং তার আরেক সহকর্মী নিউটন বড়ুয়ার হাতে লাঞ্ছিত এবং অপমানিত হন আবদুল মোনাফ। এসিল্যান্ড অফিসের কর্মচারী বিজয় বড়ুয়া এবং নিউটন বড়ুয়া গালাগাল এবং অপমান করার পরে বাবা অসুস্থ হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করাতে হয়।

ডাক্তাররা জানান, তিনি হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছিলেন। ২৫টি ইনজেকশন দেয়া হয়। এক প্রকার সুস্থ হয়ে তিনি ঘরেও ফিরে আসেন। কিন্তু এসিল্যান্ড অফিসের কর্মকর্তাদের দুর্ব্যবহার তিনি ভুলতে পারছিলেন না। গত ২৩ সেপ্টেম্বর রাতে তার শারীরিক অবস্থার হঠাৎ অবনতি হয়। তখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকরা তার বাবাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আইরিন বলেন, এসিল্যান্ড অফিসের কর্মচারী বিজয় নন্দন বড়ুয়া ও নিউটন বড়ুয়ার দুর্ব্যবহারের ধকল সইতে না পেরে আমার বাবা মারা গেছেন। আমি বিজয় নন্দন বড়ুয়া ও নিউটন বড়ুয়ার শাস্তি চাই।

আবদুল মোনাফকে দুর্ব্যবহার করার একটি ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে দেখা যায়, বৃদ্ধ মোনাফের সাথে তুমুল বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত বিজয় নন্দন বড়ুয়া ও নিউটন বড়ুয়া৷

তাদের কথোপকথনের কিছু অংশ এখানে তুলে ধরা হলো-

বিজয় নন্দন বড়ুয়া: ‘বেয়াদবের বাচ্চা থাপড়াইয়্যা গাল ফাটায় দেবো। ওকে লাথি দিয়ে বের কর।’

আব্দুল মোনাফ: ‘আমার কাজ শেষ না করে বছরের পর বছর ঘুরাস কেন?’

বিজয় নন্দন বড়ুয়া: ‘তোকে কোন… (চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় গালি দিয়ে) ঘুরায়? একদম ফুটবলের মতো মারব। পা দিয়ে পিষে দেবো।’

আব্দুল মোনাফ: ‘মানুষকে এত কষ্ট দাও কেন?’
বিজয় নন্দন বড়ুয়া: ‘শালার পুতকে বাঁধ’

আব্দুল মোনাফের দিকে তেড়ে এসে আঙুল উঁচিয়ে নিউটন বড়ুয়া: ‘গালিগালাজ করবা, না। গালিগালাজ করলে পিঠের চামড়া তুলে ফেলব।’

এদিকে বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছে নিহত আব্দুল মোনাফের মেয়ে মিনু আক্তার।

/এনএএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply