নর্ড স্ট্রিম ইস্যুতে পরিবেশ বিপর্যয়ের শঙ্কা

|

ইউক্রেনে চলমান রুশ আগ্রাসনে সবচেয়ে ক্ষতির মুখে প্রকৃতি। নর্ড স্ট্রিম পাইপলাইন লিকেজ বিষয়টিকে আরও একবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল। এ লিকেজ দিয়ে আশঙ্কাজনক হারে নিঃসরণ হচ্ছে ক্ষতিকর মিথেন গ্যাস। যেটিকে মানব ইতিহাসের সবচেয়ে বড় মিথেন বিপর্যয়ের ঘটনা বলে অভিহিত করেছে জাতিসংঘ। যা ঘটাতে পারে ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়। খবর রয়টার্সের।

নর্ড স্ট্রিম পাইপলাইন, রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গের উপকূল থেকে বাল্টিক সাগরের তলদেশ দিয়ে প্রায় বারোশ কিলোমিটার বিস্তৃত। এর মাধ্যমে প্রতিদিন জার্মানিতে ১৭০ মিলিয়ন কিউবিক মিটার গ্যাস পাঠায় মস্কো। আন্তর্জাতিক মিথেন নিঃসরণ পর্যবেক্ষক সংস্থার তথ্য মতে, পাইপলাইনের প্রতিটি লিকেজ থেকে ঘণ্টায় গড়ে ২৩ হাজার কেজি মিথেন গ্যাস বের হচ্ছে। যা জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশের নজিরবিহীন বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।

আইএমইও প্রধান মানফ্রেডি ক্যালটাগিরোনে বলেন, একক উৎস থেকে এখন পর্যন্ত শনাক্ত হওয়া সবচেয়ে বড় মিথেন নিঃসরণের ঘটনা এটি। যা ঘণ্টায় ২ লাখ ৮৬ হাজার কেজি কয়লা পোড়ালে যে দূষণ হবে তার সমান। গ্যাস নিঃসরণের এই হার পরিবেশের জন্য উদ্বেগজনক।

পরিবেশবিদরা বলছেন, কার্বন ডাই অক্সাইডের পরই জলবায়ু পরিবর্তনে গ্রিনহাউজ গ্যাস হিসেবে মিথেনই সবচেয়ে বেশি দায়ী। এমনকি কার্বন ডাই অক্সাইডের তুলনায় এই গ্যাসের ৮৪ গুণ বেশি ক্ষতি করার ক্ষমতা রয়েছে। তাই শক্তিশালী এই গ্যাসের বিপুল পরিমাণ নিঃসরণ দীর্ঘমেয়াদে অঞ্চলটির জলবায়ু পরিবর্তনে প্রভাব ফেলবে বলে শঙ্কা বিজ্ঞানীদের।

নরওয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানী স্টিফেন প্লাট বলেন, মিথেন অতি শক্তিশালী গ্রিনহাউস গ্যাস। তাপকে আটকে রাখার মাধ্যমে এই গ্যাস বায়ুমণ্ডলের তাপমাত্রাকে বাড়িয়ে দেয়। বায়ুমণ্ডলে এর স্থায়ীত্ব ১১-১২ বছর পর্যন্ত হতে পারে। এই সময়কালে জলবায়ু পরিবর্তনে ভূমিকা রাখবে গ্যাসটি। এখন দেখার বিষয় আগামী দিনগুলোতে অঞ্চলটিতে পরিবেশগত কী কী পরিবর্তন দেখা যায়।

পাইপলাইনের গ্যাস নিঃসরণ যখন পরিবেশকে হুমকির মুখে ফেলছে তখনও একে অপরকে দোষারপে ব্যস্ত রাশিয়া ও পশ্চিমা দেশগুলো। এটিকে নাশকতা উল্লেখ করে সরাসরি যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের দায়ী করছে মস্কো। আর এটিকে স্যবোটাজ বলছে ইউক্রেনসহ ইউরোপীয় দেশগুলো। চলমান এই বিতর্ক পরমাণু যুদ্ধ উসকে দিচ্ছে বলে শঙ্কা বিশ্লেষকদের।

/এমএন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply