পূজার ছুটির অজুহাতে পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির পাঁয়তারা হতে পারে, শঙ্কা ব্যবসায়ীদের

|

রাজধানীর বাজারে দেশি ও ভারতের পেঁয়াজ সরবরাহে ঘাটতি না থাকা সত্ত্বেও দাম কমার কোনো লক্ষণ নেই। গত দু’সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৫ থেকে ৬ টাকা। এ পরিস্থিতির মধ্যে পূজার কারণে ভারতের সাথে আমদানি-রফতানি কর্যক্রম ৮ দিন বন্ধ থাকবে। এমন অবস্থায় পেঁয়াজের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারা হতে পারে বলে মনে করছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা। অবশ্য আমদানিকারকরা বলছেন, প্রতিদিন ভারত থেকে ৪০ থেকে ৫০ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। তাই পূজার বন্ধে বাজারে প্রভাব পড়ার আশঙ্কা নেই।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে অমদানি করা পেঁয়াজের কেজি এখন বিক্রি হচ্ছে ২৮ টাকা দরে। ফরিদপুরের ৩৪ টাকা আর রাজশাহীর পেঁয়াজের কেজি ৪২ টাকা। তবে পাড়া বা মহল্লায় এ দাম আরো বেশি। এ নিয়ে পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণে সরবরাহ রয়েছে। তাই সংকটে পড়ার আশঙ্কা নেই। তবে পূজার কারণে আমদানি বন্ধের অজুহাত দেখিয়ে বাজারে আবার অস্থির করতে পারে আমদানিকারকরা।

বর্তমানে হিলি স্থল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে দৈনিক ৫০ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। যদিও আসন্ন দূর্গাপূজা উপলক্ষে ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ৭ অক্টোবর টানা ৮ দিন বন্ধ থাকবে আমদানি ও রফতানি কার্যক্রম। আমদানিকারকরা বলছেন, টানা বন্ধের কারণে বাজারে সরবরাহ ঠিক রাখতে বেশি করে আমদানি করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে আমদানিকারক নূর আলম বাবু বলেন, পূজার ছুটির কারণে পেঁয়াজের দাম যাতে না বাড়ে সে জন্য আমরা যথেষ্ট পরিমাণ আমদানি করে রাখছি। ২-৩ টাকা বাড়তে পারে, তবে দ্রুতই তা ঠিক হয়ে যাবে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, বছরে পেঁয়াজের চাহিদা প্রায় ৩৫ লাখ ৫০ হাজার টন। এরমধ্যে ৩০-৩৫ শতাংশ আমদানি করতে হয়। তবে আগামী বছর এই চাহিদা দাঁড়াতে পারে ৩৬ লাখ টনে।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply