শুভ জন্মদিন ‘সুরের সরস্বতী’

|

ছবি: সংগৃহীত

তিনি সুরের সরস্বতী। তাকে বলা হয়ে থাকে- কুইন অব মেলোডি, ভয়েস অব দ্য নেশন, ভয়েস অব মিলেনিয়াম, নাইটিঙ্গেল অব ইন্ডিয়া। যুগ ও কালের গণ্ডি পেরিয়ে তার কণ্ঠ হয়ে ওঠেছে আধুনিক ভারতবর্ষের কণ্ঠস্বর। শুধু ভারতেরই নয়, উপমহাদেশের কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকরের জন্মদিন আজ।

মেয়েটির বয়স ছিল তখন মাত্র ১৩ বছর। ঠিক সে সময়ই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বাবা মারা যায় তার। সংসারে নেমে আসে অন্ধকার। পাঁচ ভাই-বোনের সংসারের হাল ধরতে ছোট্ট মেয়েটি দৃঢ় প্রত্যয়ে নেমে পড়ে কাজে। ছোটে গানের পেছনে।    

হিন্দি সিনেমায় তিনি প্রথম গান করেন ১৯৪৬ সালে। বসন্ত যুগালকারের ‘আপ কি সেবা ম্যায়’ সিনেমায় তার গাওয়া ‘পা লাগো কার জুরি’ গানটি ব্যবহৃত হয়। এর দুই বছর পর ‘দিল মেরা থোড়া’ গান গেয়ে জনপ্রিয়তা পান তিনি।    

জনপ্রিয় ভারতীয় সঙ্গীতশিল্পী কুমার শানু স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘নেয়া সাওয়ান কা’ সিনেমার একটি গান গাওয়ার সময় আমি দেখলাম আমার পাশে ছোট একটা মাইক লাগানো হয়েছে। আমি তখন বাপ্পী’দাকে বললাম এটা কি ডুয়েট গান? কেউই কিছু বলল না। তারপর দেখলাম লতাজি উঠে আসলেন সিঁড়ি দিয়ে। তখন আমি একটু ভয় পেয়ে গেলাম। তখন লতাজি আমাকে বললেন- তুমি খুব ভালো গান গাও। তার এমন প্রশংসা তখন আমাকে অনেক সাহস জুগিয়েছিলো। সেদিনের কথা আমি জীবনেও ভুলবো না।  

১৯২৯ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর বৃটিশ ভারতের ইন্দোরে জন্মগ্রহণ করেন লতা। জাদুমাখা কণ্ঠ দিয়ে তিনি ভক্তদের মাতিয়েছেন দীর্ঘ সাত দশক ধরে। নওশাদ, মদন মোহন, এসডি বর্মণ থেকে শুরু করে বর্তমান সময়ের এআর রহমানের মতো সঙ্গীত পরিচালকদের সঙ্গেও সমান তালে কাজ করেছেন তিনি।

এক নজরে কোকিলকণ্ঠী লতা মঙ্গেশকর

আরেক জনপ্রিয় ভারতীয় সঙ্গীতশিল্পী শ্রেয়া ঘোষাল লতাজির স্মৃতিচারণ করে বলেন, লতাজি এতো পারফেক্টলি গান করতেন; তা বলে বোঝানো সম্ভব নয়। একটা গানে কতোটুকু সুর দিতে হবে, শব্দের উচ্চারণ, গানের ভঙ্গিমা কেমন হবে, তার চেয়ে ভালো আর কেউ করতে পারবে না।  

১ হাজারের বেশি হিন্দি সিনেমায় গান গেয়েছেন লতা মঙ্গেশকর। হিন্দির পাশাপাশি মারাঠি, বাংলাসহ মোট ৩৬টি ভাষায় গান করেছেন তিনি। সব মিলিয়ে তার গাওয়া গানের সংখ্যা ২৫ হাজারের বেশি।

আরেক ভারতীয় প্লে ব্যাক লিজেন্ড অলকা ইয়াগনিক বলেন, আমি নিঃশ্বাস নিই লতাজি’র গান শুনে। আগে ঘুম থেকে উঠেই রেডিও ছাড়লে তার গানই শুনতাম। তার জাদুমাখা কন্ঠের গান সকাল থেকে রাত পর্যন্ত শোনা যায়।

তিনি প্রায় সব ধরণের পুরস্কার ও সম্মাননা অর্জন করেছেন। ভারতের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মান ভারতরত্ন, পদ্মবিভূষণ, দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কার, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, ৭ বার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার, ১৫ বার বেঙ্গল ফিল্ম জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন অ্যাওয়ার্ডসহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি।

তবে, ৯২ বছর বয়সী লতা মঙ্গেশকর এ বছর ৬ ফেব্রুয়ারী একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন। গত এক যুগ প্লেব্যাকে লতা মঙ্গেশকরকে তেমন একটা পাওয়া না গেলেও সঙ্গীতভুবনে নাম তার নামটি অমর হয়ে থাকবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply