মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ, ভুক্তভোগীর স্বজনদের জুতাপেটা

|

স্টাফ করেসপনডেন্ট, ফেনী:

ফেনীর বালিগাঁওয়ে মাদ্রাসাপড়ুয়া ৫ বছরের এক কন্যাশিশুকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে তারই শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে জুতাপেটা করেছে ভুক্তভোগীর স্বজনেরা।

জানা যায়, ফেনীর বালিগাঁও ইউনিয়নের সুন্দরপুর গ্রামের ঐ মাদ্রাসায় সোমবার সকালে ক্লাস বিরতির ফাঁকে কৌশলে প্রতিষ্ঠানের ছাদে নিয়ে হাত-পা বেঁধে ও মুখে স্কচ টেপ পেচিয়ে নির্যাতন চালায় অভিযুক্ত শিক্ষক ফখরুল ইসলাম। পরে হত্যার ভয় দেখিয়ে কাউকে কিছু না বলার শর্তে ছেড়ে দেয়। একপর্যায়ে মেয়েটি তার মাকে বিষয়টি জানালে মঙ্গলবার সকালে স্বজনরা মাদ্রাসায় গিয়ে হাতে-নাতে আটক করে অভিযুক্ত শিক্ষককে পুলিশে দেয়। পরে বিক্ষুদ্ধ স্বজনরা অভিযুক্ত ফখরুলকে জুতাপেটা করে। সে ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এরইমধ্য ভাইরাল।

ভুক্তভোগীর মা জানান, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে ধর্মীয় শিক্ষা দেয়ার জন্য মেয়েকে মাদ্রাসায় ভর্তি করেছি। কিন্তু আমার অবুঝ মেয়েকে মাদ্রাসার শিক্ষক ফখরুল ইসলামের হাতে লালসার শিকার হতে হলো। আমি অভিযোগ করতে মাদ্রাসায় গেলে মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক ব্যবস্থা না নিয়ে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেন।

তিনি আরও বলেন, এসব মাদ্রাসা চালু থাকলে ভবিষ্যতে এরকম ঘটনা আরও ঘটবে। মাদ্রাসায় কোনো নিয়ম নীতি নাই। শুধুমাত্র টাকা রোজগার করার জন্য মাদ্রাসা চালু করেছে। এখানকার শিক্ষকরা অন্য ছাত্রীদের সাথেও এসব করছে। কেউ হয়তো মুখ খুলছে না।

তবে, ফখরুল ইসলামের পক্ষে সাফাই গেয়ে প্রধান শিক্ষক বলেন, তিনি এরকম কোনো ঘটনায় জড়িত নন। বরং তখন তিনি আমার সাথে মিটিংয়ে ছিলেন।

ফেনী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নিজাম উদ্দিন জানান, খবর পাওয়ার সাথে সাথে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত ফখরুল ইসলামকে আটক করেছে। ধর্ষণ চেষ্টা মামলা নেয়া হয়েছে। শিশুটি ডাক্তারি পরীক্ষা ও আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি গৃহীত হবে।

জেডআই/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply