দুই গোল্ডেন ডাকের পর টানা ম্যাচ সেরা পারফরমেন্স, ছন্দে ফিরছেন সাকিব

|

ছবি: সংগৃহীত

টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের এশিয়া কাপ মোটেও ভালো যায়নি সাকিব আল হাসানের। গ্রুপ পর্বের দুটি ম্যাচই হেরে শূন্য হাতে যেমন বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ, তেমনি ব্যাটে-বলে নিজের ছায়া হয়ে ছিলেন অধিনায়ক সাকিব। তারপর ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) প্রথম দুই ম্যাচেই সাকিবের গোল্ডেন ডাক যেন বিশ্বকাপের ঠিক আগে বাংলাদেশের জন্য ছিল এক অশনি সংকেত। তবে আবারও ফিরেছেন সাকিব। টানা দুই ম্যাচে অলরাউন্ড পারফরমেন্সে ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত দিলেন এই চ্যাম্পিয়ন অলরাউন্ডার। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে এমন সাকিবকেই তো চায় ক্রিকেটপ্রেমীরা!

এশিয়া কাপের ব্যর্থতা ঘোচাতে বাংলাদেশ যখন খেলছে আরব আমিরাতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ, তখন সাকিব আল হাসান গেছেন সিপিএল খেলতে। তার ফ্র্যাঞ্চাইজি গায়ানা অ্যামাজন ওয়ারিয়র্সও বাজে পারফরমেন্সের বৃত্ত ভেঙে পেয়েছে টানা চারটি জয়। উঠে এসেছে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় অবস্থানে। আর এখানে প্রাসঙ্গিকভাবেই চলে আসে সাকিবের নাম। সিপিএলে নিজের প্রথম দুই ম্যাচে ব্যাট হাতে তার পারফরম্যান্স ছিল রীতিমত সঙ্গিন, টানা দু’টি গোল্ডেন ডাকে কপালে ভাঁজের সংখ্যাও হয়তো বাড়ছিল বাংলাদেশি সমর্থকদের। তবে ওই দুই ম্যাচে ৩টি উইকেট দখল করেন সাকিব।

এরপরের গল্পটা ঘুরে দাঁড়ানোর। সিপিএলে নিজের তৃতীয় ম্যাচে ব্যাট হাতে ২৫ বলে ৩৫ রান করার পর বল হাতে ২০ রান খরচায় সাকিব নেন ৩ উইকেট। এরপরের ম্যাচটি হয় বার্বাডোজ রয়্যালসের বিপক্ষে। আর সেখানে গায়ানা অ্যামাজন ওয়ারিয়র্সকে ৫ উইকেটে জেতাতে ঝড়ো গতির হাফ সেঞ্চুরির পাশাপাশি একটি উইকেটও নিয়েছেন সাকিব। বার্বাডোজকে ১২৫ রানে অলআউট করে দিতে ২.৩ ওভারে ১২ রান দিয়ে একটি উইকেট নিয়ে ভূমিকা রাখেন সাকিব।

তবে সাকিবের ম্যাচ সেরা পারফরমেন্স দেখা যায়, যখন তিনি ব্যাট হাতে আসেন ক্রিজে। চার নম্বরে নেমে সাকিবের ৫৩ রানের ইনিংসের সৌজন্যে ৩৩ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটের সহজ জয় পায় গায়ানা। ৩০ বলের ইনিংসটিতে সাকিব ৫টি বাউন্ডারির পাশাপাশি হাঁকান ৩টি ওভার বাউন্ডারি। হেটমায়ার, শাই হোপরা জ্বলে উঠতে না পারলেও চওড়া কাঁধে দলকে টেনে নিয়ে সাকিব ইঙ্গিত দিলেন, বড় মঞ্চে ঝড় তোলার প্রস্তুতিটা নেহাতই খারাপ হচ্ছে না তার।

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply