বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়ার প্রক্রিয়া স্থগিতের ঘোষণা মালয়েশিয়ার

|

বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক পাঠানোর ক্ষেত্রে সিন্ডিকেটের আশ্রয় এবং এর মাধ্যমে নির্দিষ্ট মাত্রার চেয়ে অন্তত ১০ গুন বেশি টাকা আদায়ের অভিযোগে বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়ার প্রক্রিয়া স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার।

আজ শুক্রবার দেশটির মানব সম্পদ বিষয়ক মন্ত্রী কুলাসেগারান এ ঘোষণা দেন। মন্ত্রী বলেন, ‘কর্মীদের পাঠানোর ক্ষেত্রে সিন্ডিকেট কাজ করছে- এমন অভিযোগের ব্যাপারে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত এ প্রক্রিয়া স্থগিত থাকবে।’

এর আগে মালয়েশিয়ান পত্রিকা দ্য স্টার এর অনুসন্ধানে এই সিন্ডিকেটের তথ্য জানানো হয়। তাতে বলা হয়, রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর নেতৃত্বে পরিচালিত একটি মানবপাচারচক্র মালয়েশিয়ায় শ্রমিকদের কাজ দিয়ে দুই বছরে অন্তত ২০০ কোটি মালয়েশীয় রিঙ্গিত হাতিয়ে নিয়েছে। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৪ হাজার ২০০ কোটি ৬৫ লাখ টাকা।

দ্য স্টার-এর অনুসন্ধানে উঠে এসেছে, বাংলাদেশে স্থানীয় এজেন্টকে ২০ হাজার করে মালয়েশীয় রিঙ্গিত দিচ্ছে শ্রমিকরা। স্থানীয় এজেন্টরা এর মধ্যে অর্ধেক অর্থ, অর্থাৎ প্রায় ১০ হাজার রিঙ্গিত দিচ্ছে সরকারিভাবে নিবন্ধিত এজেন্টদের হাতে।

তবে সূত্রের বরাত দিয়ে দ্য স্টার জানায়, একজন শ্রমিক পাঠানোর নথিভুক্তি ও পরিবহনে খরচ হয় ২ হাজার রিঙ্গিতের চেয়েও কম।

পত্রিকাটির খবরে বলা হয়েছে, ২০১৬ সালের শেষের দিক থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত ১ লাখের বেশি শ্রমিক মালয়েশিয়া গিয়েছেন কাজের জন্য। এছাড়া আরও লক্ষাধিক শ্রমিক দেশটিতে যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন।

ভারত, পাকিস্তান, নেপাল ইত্যাদি দেশ থেকে একই ধরনের শ্রমিক পাঠাতে ৫০ হাজার টাকা করে নেয়া হয়।

আমাদের মালয়েশিয়া প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মন্ত্রীর এই ঘোষণার ফলে চলতি প্রক্রিয়ায় নতুন করে বাংলাদেশি কর্মীরা মালয়েশিয়ায় যাওয়ার আবেদন করতে পারবেন না। তবে যাদের আবেদন ইতোমধ্যে গৃহীত হয়েছে তারা মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করতে পারবেন।

 





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply