বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচারের জবাব দিতে প্রবাসীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান

|

সরকার ও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের যোগ্য জবাব দিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে দেশের অভূতপূর্ব উন্নয়নের বাস্তব চিত্র তুলে ধরা এবং বিশ্বে বাংলাদেশ যে মর্যাদা ও সম্মান অর্জন করেছে তা ধরে রেখে মাথা উঁচু করে প্রবাসীদের বিশ্বব্যাপী চলার আহ্বানও করেন তিনি।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেয়া ভার্চুয়াল সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এ আহ্বান জানান তিনি। বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে চালানো অপপ্রচারের তাৎক্ষণিক উপযুক্ত জবাব দিন। এই অপপ্রচারের নেপথ্যে রয়েছে যুদ্ধাপরাধী ও জাতির পিতার খুনিদের আত্মীয়-স্বজন। এদের পাশাপাশি দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া অর্থপাচারকারীসহ নানা অপরাধী জড়িত বলেও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অপপ্রচারকারীদের বেশিরভাগই অপকর্মে জড়িত থাকার জন্য চাকরি থেকে বরখাস্ত হয়েছেন বা অপরাধ করে দেশ ছেড়ে পালিয়েছে। সরকার ও দেশ সম্পর্কে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে যারা অন্যদের সবক দিচ্ছেন, এমন ব্যক্তিদের চরিত্র ও অপকর্ম জনসমক্ষে তুলে ধরার আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

সরকার প্রধান বলেন, প্রবাসীদের কল্যাণে সরকার তিনটি ব্যাংক করে দিয়েছে। সংকটকালে দেশের পাশে থাকার জন্য শুভেচ্ছা জানিয়ে দেশে বিনিয়োগ বাড়াতেও প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এ সময় প্রবাসীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট ও আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বাজেটের আকারের তুলনামূলক চিত্র দেখে তাদের দ্বারা কতটা উন্নয়ন হয়েছে তা বিচার করতে পারবেন। বিএনপি আমলে বাজেটের আকার ছিল মাত্র ৬০ হাজার কোটি টাকা। আওয়ামী লীগ সরকারের শেষ বাজেট ছিল ছয় লাখ কোটি টাকার ওপরে।

বাংলাদেশের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বদলে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, এ সিদ্ধান্ত প্রমাণ করেছে বাংলাদেশ যা বলে তা করার ক্ষমতা রাখে। জলবায়ু পরিবর্তন, কোভিড-১৯ মহামারি, রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধ, নিষেধাজ্ঞা ও পাল্টা নিষেধাজ্ঞার কারণে বিশ্বে আসন্ন তীব্র খাদ্য সংকট সম্পর্কে দেশবাসীকে সতর্ক করে ভবিষ্যতে তা থেকে বাঁচতে সবাইকে আরও বেশি করে খাদ্য উৎপাদনের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, যেহেতু একটি প্রকট খাদ্য সংকট আসন্ন, তাই দেশে আপনার স্বজনদের বলুন, বিভাজনের কারণে দেশের কোনো জমিই অনাবাদী রাখা যাবে না।

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী আরও বলেন, আওয়ামী লীগ সবসময় জনগণের অধিকার রক্ষায় বিশ্বাসী। আওয়ামী লীগ ক্যান্টনমেন্টে বন্দি অবস্থা থেকে জনগণের ভোটাধিকারের ক্ষমতা ফিরিয়ে দিয়েছে।

/এমএন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply