সীমান্তে সন্ত্রাসবাদের শিকার ভারত, জাতিসংঘে দেয়া ভাষণে যা বললেন ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী

|

সীমান্তে দশকের পর দশক সন্ত্রাসবাদের শিকার হয়েছে ভারত। চীন ও পাকিস্তানকে উদ্দেশ্য করে এমন দাবি করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেয়া ভাষণে দেশ দুটির নাম উল্লেখ না করেই সন্ত্রাসবাদের প্রতি জিরো টলারেন্স নীতির হুঁশিয়ারি দেন তিনি। আর রুশ-ইউক্রেন ইস্যুতে নিরপেক্ষ অবস্থানের কথা জানান ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

দুদিন আগেই জাতিসংঘের মঞ্চে দাঁড়িয়ে ভারতকে দোষারোপ করেছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ। শাহবাজের অভিযোগ ছিল, ভারতে মুসলিমরা নিপীড়নের শিকার। কাশ্মির ইস্যুও উঠেছিল শাহবাজের বক্তৃতায়। অঞ্চলটিতে ভারতীয় সেনারা দমন-পীড়ন চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

শনিবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অবধারিতভাবেই পাক প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব উঠে আসে ভারতীয় প্রতিনিধির বক্তব্যে। সীমান্তে হামলার জন্য ইসলামাবাদকে দায়ী করেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর। চীনের বিরুদ্ধেও আনেন সীমান্ত সন্ত্রাসের অভিযোগ। অবশ্য কাশ্মির ইস্যুতে কোনো মন্তব্য করেননি জয়শঙ্কর। ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দশকের পর দশক সীমান্তে সন্ত্রাসের শিকার ভারত। যেকোনো ধরনের সন্ত্রাসী কাজের পক্ষে কোনো সাফাই হয় না। রক্তের বিপরীতে কোনো ভণ্ডামি গ্রহণযোগ্য নয়।

রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়েও কথা বলেন ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এই ইস্যুতে তাদের নিরপেক্ষ অবস্থান স্পষ্ট করে কার্যকর সমাধানে গঠনমূলক আলোচনা ও কূটনৈতিক তৎপরতার আহ্বান জানান জয়শঙ্কর। বলেন, প্রায়ই জানতে চাওয়া হয়, আমরা কোন পক্ষে? প্রতিবারই আমাদের উত্তর হয়, আমরা শান্তির পক্ষে এবং জোরালোভাবেই এই অবস্থান বজায় রাখবো। যারা খাদ্য, জ্বালানি ও সারের সংকটে আছে তাদের পক্ষে। আর তাদের পক্ষে যারা আলোচনা ও কূটনীতির আহ্বান জানায়। দ্রুত সমাধানে জাতিসংঘ ও এর বাইরেও সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

একই দিন সাধারণ পরিষদে কথা বলেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই। তবে ভারতের সাথে বিরোধ নিয়ে কিছু বলেননি। বরং ইউক্রেন ইস্যুতে অনেকটা জয়শঙ্করের সুরেই কথা বলেন। সংকট সমাধান ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় যেকোনো পদক্ষেপে বেইজিংয়ের সমর্থন রয়েছে বলে জানান ওয়াং ই।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply