তাকরিমের বিশ্বজয়; সংবর্ধনা দেবে গর্বিত এলাকাবাসী

|

তাকরিমের সাফল্যে এলাকায় বইছে খুশির জোয়ার।

জরাজীর্ণ ঘরে জন্ম; তবে অদম্য ইচ্ছাতেই বিশ্বজয় সালেহ আহমেদ তাকরিমের। সৌদি আরবে কোরান প্রতিযোগিতায় তার সাফল্যে গর্বিত জন্মস্থান টাঙ্গাইল ও দাদার বাড়ি সিরাজগঞ্জ এলাকার মানুষ। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকেও তাকে দেয়া হবে সংবর্ধনা। পরিবারটির পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসন।

তাকরিমের দাদার বাড়ি সিরাজগঞ্জে হলেও নদী ভাঙনের কারণে এখন টাঙ্গাইলের নাগরপুরের ভাদ্রা এলাকায় পরিবারটির বসবাস। জরাজীর্ণ এই বাড়িতেই জন্ম মেধাবী এই শিশুর। বাবা সাভারে একটি মাদরাসায় শিক্ষকতা করেন। গৃহিনী মা জানালেন, ছোট বেলা থেকেই পড়াশোনায় প্রবল আগ্রহ তার মেঝ সন্তানের। তিনি জানান, বাসায় আসার চেয়ে মাদরাসায় থাকতেই বেশি পছন্দ করে তাকরিম। এই মেধাবির এমন অর্জনের পেছনে রয়েছে মাদরাসার হুজুরদের অনেক শ্রম।

তাকরিমের কীর্তিতে গর্বিত তার এলাকার মানুষ। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানালেন, এর আগেও সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে মেধাবী এই শিশুকে। এবার তা হবে আরও বড় পরিসরে। কোরান তিলাওয়াতের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় তাকরিমের ৩য় হওয়ার ঘটনায় খুশি এলাকাবাসী। তারা জানান, অনেক ছোট বয়সেই হাফেজ হয়েছে তাকরিম। তাই সে ভালো কিছু করবে, এমন প্রত্যাশা তাদেরও ছিল।

অদম্য মেধাবী এই শিশুর পরিবারকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার। টাঙ্গাইলের নাগরপুরের ইউএন ওয়াহেদুজ্জামান বলেন, আমাদের কোনো সহায়তা যদি তারা কামনা করে, উপজেলা প্রশাসন সব সময় তাদের পাশে থাকবে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতার ৪২তম আসরে ১১১টি দেশের মোট ১৫৩ জন প্রতিযোগী ৫টি ভিন্ন ভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিভক্ত হয়ে অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে বাংলাদেশি হাফেজ তাকরিম সেই প্রতিযোগিতার চতুর্থ বিভাগ অর্থাৎ, শুদ্ধ উচ্চারণসহ পনেরো পারা মুখস্থ কোরান বিভাগে তৃতীয় হয়েছে। এর আগে, গেলো মার্চে ইরানে কোরান প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছিল এই মেধাবী শিশু। পাশাপাশি দেশি-বিদেশি আরও কীর্তিও গড়েছে সে।

আরও পড়ুন: আমার চেয়ে খুশি এই মুহূর্তে কেউ নেই; মাকে উদ্ধারের খবর পেয়ে সেই মরিয়ম

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply