কুড়িগ্রামে শিক্ষক নিবন্ধনে জাল সনদ, তদন্তের পরও চাকরি করছেন ৭৭ জন শিক্ষক

|

কুড়িগ্রামে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনের জাল সনদ দিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকরি করার অভিযোগ বেশ পুরোনো। এ নিয়ে তদন্তের পর ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশও করা হয়েছে কিন্তু তার বাস্তবায়ন নেই। বহাল তবিয়তে চাকরি করছেন জাল সনদধারীরা। সম্প্রতি এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনার পর আবারও আলোচনায় এসেছে বিষয়টি।

কুড়িগ্রামে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় চলছে তোলপাড়। কয়েকজন শিক্ষক গ্রেফতার হওয়ায় আবারও আলোচনায় শিক্ষকদের অনিয়ম-দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়াসহ বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাল সনদ দিয়ে চাকরির বিষয়টি। এ নিয়ে তদন্তও হয়েছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি।

২০২১ সালে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যায়ন কর্তৃপক্ষ-এনটিআরসিএ তদন্তে ৭৭ শিক্ষকের জাল সনদের তথ্য উঠে আসে। এর প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়। কিন্তু এরপরও নিয়মিত বেতন ভাতা তুলে আসছেন তারা। প্রতিষ্ঠান প্রধানদের দাবি, জাল সনদধারীদের বিষয়ে লিখিত কোনো চিঠি না আসায় ব্যবস্থা নিতে পারছেন না তারা।

জেলা শিক্ষা অফিসার শামছুল আলমের দাবি, শিক্ষক নিবন্ধনের জাল সনদ সম্পর্কিত কোনো চিঠি পাননি তারা। তালিকা পেলে যাচাই-বাছাই কোরে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস তার।

এটিএম/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply