চীনে ভূমিকম্পে নিখোঁজ ব্যক্তি ১৭ দিন পর জীবিত উদ্ধার

|

ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত চারপাশ। পথ হারিয়ে আটকে পড়েন পাহাড়ে। হারিয়ে ফেলেন চশমাও। বাধ্য হয়ে সেই পাহাড়ি এলাকায় বসবাস শুরু করেন। খেয়ে না খেয়ে সেখানে ছিলেন টানা ১৭ দিন। সব প্রতিকূলতাকে জয় করে অবশেষে ফিরলেন জীবিত অবস্থায়ই। খবর এপির।

অবিশ্বাস্য এ ঘটনা ঘটেছে চীনে। ৬ সেপ্টেম্বরে ভূমিকম্পের পর থেকেই নিখোঁজ ছিলেন গ্যান ইউ নামের এক ব্যক্তি। ১৭ দিন ধরে পাহাড়ি ঝর্ণার পানি আর বুনো ফল খেয়ে বেঁচে ছিলেন তিনি।

শত প্রতিকূলতার মাঝেও তার বেঁচে থাকা অবিশ্বাস্য লেগেছে খোদ উদ্ধারকর্মীদের কাছেই। গেলো ৫ সেপ্টেম্বর ৬ দশমিক ৬ মাত্রার ভয়াবহ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠে চীনের সিচুয়ান প্রদেশ। ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় অনেক এলাকা। এই সিচুয়ান প্রদেশের একটি হাইড্রোপাওয়ার প্লান্টে কাজ করছিলেন গ্যান ইউ। ভূমিকম্পের পর আশপাশের মানুষকে সাহায্যে এগিয়ে আসেন তিনি ও তার বন্ধু লো ইয়ং। পরে রাত হয়ে গেলে সেখানেই থেকে যান।

পরদিন ধ্বংসস্তূপের মাঝে দু’জন হারিয়ে ফেলেন সব ধরণের যোগাযোগ। আশপাশে ছিল না মানুষের কোনো চিহ্নও। বিপত্তি আরও বাড়ে গ্যান ইউ তার চশমা হারিয়ে ফেললে। নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে পাহাড়ি এলাকায় অন্তত ২০ কিলোমিটার রাস্তা হাঁটেন দু’জন। তবুও খুঁজে পাননি লোকালয়। পাহাড়ে উঁচুনিচু রাস্তায় হাঁটা অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায় গ্যান ইউর জন্য। একসময় আকাশে হেলিকপ্টারে উড়তে দেখেন উদ্ধারকর্মীদের। কিন্তু অনেক চেষ্টা করেও তাদের নজর কাড়তে ব্যর্থ হন তারা।

তীব্র খাবার ও পানির সংকটে ভুগতে থাকা দুই সহকর্মী সিদ্ধান্ত নেন আলাদা পথে যে যার মতো বেঁচে থাকার লড়াইয়ে নামার। ৮ সেপ্টেম্বর লো ইয়ং কাঠে আগুন জ্বালিয়ে উদ্ধারকর্মীদের নজরে এলেও আড়ালেই থেকে যান গ্যান ইউ।

শুরু হয় পাহাড়ের প্রতিকূলতার মধ্যেই তার বেঁচে থাকার লড়াই। চোখে ঠিকমতো দেখতে না পাওয়ায় বাড়ি ফেরার আশাই ছেড়ে দেন। ১৭ দিন পর তাকে দেখতে পান এক ব্যক্তি। এরপরই উদ্ধারকর্মীদের খবর দেয়া হয়। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে গ্যান ইউ’র চিকিৎসক হুয়াং জুনহুয়া বলেন, সে যখন আমাদের হাসপাতালে আসে তখন তার অবস্থা স্থিতিশীল ছিল। তার শরীরে অনেক জায়গায়ই আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। বেশকিছু পরীক্ষায় তার শরীরের হাড় এবং পাঁজরে অনেকগুলো ফ্রাকচার ধরা পড়েছে। আরও কিছু সমস্যাও পাওয়া গেছে। আমরা তার চিকিৎসার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি।

এটিএম/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply