হঠাৎ করেই চোখ ওঠা রোগী বাড়ছে চট্টগ্রামে

|

হঠাৎ করেই চট্টগ্রামে বাড়ছে কনজাংটিভাইটিস বা চোখ ওঠা রোগীর সংখ্যা। ছোঁয়াচে হওয়ায় গড়ে প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছে একশজনেরও বেশি। চোখের নিচের অংশ লাল হয়ে যাওয়া, চোখে ব্যথা বা অস্বস্তি বোধ করলে চিকিৎসকদের শরণাপন্ন হওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের। চিকিৎসকরা বলছেন, করোনায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়ায় এতে আক্রান্ত বাড়ছে। আক্রান্তের হার বেড়ে যাওয়ার সাথে সাথে সংকট সৃষ্টি হয়েছে এ রোগে ব্যবহৃত আই ড্রপ ও ওষুধের।

গত কয়েকদিন ধরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চক্ষু বিভাগের সামনে রোগীদের জটলা কমছেই না। রোগীদের অনেকেই চোখে কালো চশমা পরা। হঠাৎ করেই কনজাংটিভাইটিস বা চোখ ওঠা এ রোগে বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা।

শুধুমাত্র এ হাসপতালের বহির্বিভাগ থেকেই গড়ে প্রতিদিন সেবা নিচ্ছে একশর বেশি রোগী। গত এক সপ্তাহে হাজারের বেশি কনজাংটিভাইটিস আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিয়েছেন চিকিৎসকরা। তারা বলছেন, রোগটি ছোঁয়াচে হওয়ায় দ্রুত পরিবারের অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে। তাই চিকিৎসা নিতে আসা বেশিরভাগই একই পরিবারের সদস্য।

চোখের নিচের অংশ লাল হয়ে যাওয়া, চোখ ব্যথা, কচকচ করা বা অস্বস্তি বোধ হওয়া এ রোগের লক্ষণ। যা প্রথমে এক চোখে আক্রান্ত হয়, তারপর অন্য চোখে ছড়িয়ে পড়ে। এমন হলে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়ার পরামর্শ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. শামীম আহসান।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা. সুব্রত দাশ মনে করছেন, করোনায় মানুষের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কমে যাওয়ার ফলে সহজেই আক্রান্তের হার বাড়ছে। তাই রোগটি প্রতিরোধে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শ এড়িয়ে চলার পরামর্শ তার।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply