জাপানের ইতিহাস গড়া জয়

|

রাশিয়া বিশ্বকাপে অঘটনই যেন ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আপসেট লিস্টে যুক্ত হলো আরেকটি নাম-কলম্বিয়া। লাল কার্ডই কাল হয়ে দাঁড়ালো তাদের। আর এশিয়ার প্রথম দল হিসেবে লাতিন আমেরিকার কোনো দেশকে হারানোর ইতিহাস গড়লো জাপান।

ম্যাচের মাত্র তিন মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে গোল করে এগিয়ে যায় জাপান। ডি বক্সের মধ্যে অনেকটা ফাঁকায় বল পেয়ে যায় জাপানের কাগাওয়া। খানিকটা অপ্রস্তুতই হয়ে পড়েন  কলম্বিয়ান গোলরক্ষক অসপিনা। বাহু দিয়ে কাগাওয়ার নেয়া শট প্রতিরোধ করেন  কার্লোস সানসেজ। সাথে সাথে রোফারি লাল কার্ড বের করেন। রাশিয়া বিশ্বকাপে এটি প্রথম লাল কার্ড খাওয়ার ঘটনা। পেনাল্টি থেকে গোল করে জাপানকে এগিয়ে দেন কাগাওয়া।

দশ জনের দল নিয়েই জাপানকে গোল পরিশোধের জন্য মুহুর্মুহু আক্রমণ চালিয়ে যায় কলম্বিয়া। কিন্তু, জাপান যেন ইতিহাস গড়ার পণ নিয়েই অ্যারিনার মাঠে নেমেছিল।  রক্ষণ শক্তিশালী করার পাশাপাশি আক্রমণের ধারও ধরে রেখেছিল তারা।

ম্যাচে ৩৯ মিনিটে জাপানের বক্সের বাহিরে ফ্রি-কিক পায় কলম্বিয়া। কুইনতেরোর নেয়া নিচু শট জাপানের রক্ষণব্যুহ ভেদ করে গোল লাইন অতিক্রম করে।  ঠেকিয়ে দেন জাপান গোলরক্ষক কাওয়াশিমা বল কব্জায় নিলেও ততক্ষণে দেরি হয়ে গেছিল।ভিডিও রেফারির সহযোগিতা নিয়ে গোল নিশ্চিত করেন রেফারি। প্রথমার্ধ শেষে ১-১ গোলে সমতা নিয়ে বিরতিতে যায় দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধেও আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে দু’দল। ৫৯ মিনিটে ইনজুরি আক্রান্ত হামেস রদ্রিগেজকে মাঠে নামিয়ে দেন কলম্বিয়ার আর্জেন্টাইন কোচ হোসে পেকারম্যান।
অন্যদিকে, গোলদাতা কাগাওয়াকে উঠিয়ে অভিজ্ঞ কেইসুকে হোন্ডাকে মাঠে নামায় জাপান। ম্যাচের ৭৩ মিনিটে সেই কেইসুকে হোন্ডার ফ্রি-কিক থেকেই হেডের মাধ্যমে গোল করে জাপানকে লিড এনে দিলেন ওসাকা।  কলম্বিয়ার অভিজ্ঞ ফরোয়ার্ড রাদামেল ফ্যালকাওকে সেভাবে খুঁজে পাওয়া যায়নি। অনেকটা নিজের ছায়া হয়েই থাকলেন এ তুরুপের তাস।

শেষ পর্যন্ত একের পর এক আক্রমণ চালিয়েও আর গোল পরিশোধ করতে পারেনি কলম্বিয়া। একরাশ হতাশা নিয়ে শেষ করে ম্যাচ। আর অশ্রুসিক্ত নয়নে ইতিহাস গড়ার আনন্দ উদযাপন করে জাপান।

বুঝাই যাচ্ছে, রাশিয়া বিশ্বকাপ আরও অনেক ভেল্কি দেখাবে। বড় দলগুলোর সমর্থকদের জন্য উপভোগের মানসিকতা নিয়ে প্রস্তুত থাকাই শ্রেয়।

যমুনা অনলাইন: টিএফ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply