বাদ জুমা ড. আকবর আলির জানাজা, বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন

|

ফাইল ছবি।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও অর্থনীতিবিদ ড. আকবর আলি খানের জানাজা শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) বাদ জুমা গুলশানের আজাদ মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। এরপর মিরপুরের শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে দাফন হওয়ার কথা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর।

কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ বোধ করছিলেন আকবর আলি খান। একদিন আগে হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষাও করান। বড় ধরনের কোনো বিপদ তখনও কেউ আঁচ করতে পারেনি। বৃহস্পতিবার রাতে আবারও হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়লে নেয়া হয় রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে। কিন্তু এবার চিকিৎসা নেয়ার ফুরসতটুকু পেলেন না। রাত সাড়ে ১০টার দিকে মারা যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সফল এই আমলা।

আকবর আলি খান ১৯৪৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে নেন স্নাতক ডিগ্রি। পরে কানাডার কুইন্স ইউনিভার্সিটিতে পড়েছেন অর্থনীতিতে। একই বিষয়ে পিএইচডিও করেন তিনি। পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসের পরীক্ষার মাধ্যমে তিনি সরকারি চাকরিতে যোগ দেন। অবসর নেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে। অর্থ সচিব আর এনবিআরের চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করেন তিনি।

সাবেক এই সরকারি কর্মকর্তা পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে কর্মরত অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তিনি হবিগঞ্জের মহকুমা প্রশাসক ছিলেন। আকবর আলি মুজিবনগর সরকারের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে কাজ করেছিলেন। কর্মক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকায় পাকিস্তানি জান্তা তাকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি সরকারি চাকরি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতার সাথে যুক্ত ছিলেন। ২০০৬ সালে রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের একজন উপদেষ্টা ছিলেন আকবর আলি খান। পরবর্তীতে সুষ্ঠু নির্বাচন না হওয়ার শঙ্কায় তিনিসহ তিনজন উপদেষ্টা পদত্যাগ করেন।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply