নিজের দর্শন ও বাস্তবতাকে নতুন করে জানা-বোঝার জন্য এ পরিবর্তন ভীষণ প্রয়োজন ছিল: শাকিব খান

|

বিমানবন্দরে ভক্তদের সাথে সাক্ষাতকালে শাকিব খান।

দীর্ঘ নয় মাস পর দেশে ফিরলেন ঢাকাই সিনেমার সুপারস্টার শাকিব খান। বুধবার (১৭ আগস্ট) দুপুর ১টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে তাকে বহন করা বিমানটি। বিমানবন্দর থেকে বের হয়েই গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন তিনি।

শাকিব খানের দেশে ফেরার বিষয়টি গণমাধ্যমের বরাতে জানার পর থেকেই শাকিবভক্তরা ছিলেন উচ্ছ্বসিত। গত কয়েকদিন ধরেই বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকার জন্য ফেসবুকের বিভিন্ন ফ্যান গ্রুপ থেকে আহ্বান জানানো হয়। সে আহ্বানে সাড়া দিয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে শাকিবভক্তরা ঢাকায় পৌঁছেন।

সকাল থেকেই তারা শাকিব খানের ছবি সম্বলিত ব্যানার, পোস্টার ও ফুল নিয়ে জড়ো হতে থাকেন বিমানবন্দর এলাকায়। বেলা দেড়টার দিকে বিমানবন্দর থেকে শাকিব খানকে বের হতে দেখেই উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন ভক্তরা।

ভক্তদের উচ্ছ্বাস দেখে শাকিব বলেন, সবাই যে আমাকে এতো মিস করেছে, তা দেখে সত্যিই আমি বাকরুদ্ধ। কী বলবো! আমিও ভীষণ মিস করেছি। একটু পরপর এয়ারহোস্টেসকে জিজ্ঞেস করছিলাম, ঢাকায় নামতে আর কতোক্ষণ লাগবে? আমার মধ্যেও কিন্তু একই উত্তেজনা কাজ করেছে।

কেমন কেটেছে যুক্তরাষ্ট্রের দিনগুলো?- জানতে চাইলে শাকিব জানান, ভক্তদের জন্য বেশ কয়েকটি সুখবর নিয়ে এসেছেন তিনি। স্পেশাল কিছু ভালো খবর সবার জন্য অপেক্ষা করছে বলেও জানান তিনি।

এর আগে, গুঞ্জন ওঠে ঢালিউডের এই শীর্ষ নায়ক যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী হচ্ছেন। তবে ৯ মাস পর ফিরে অভিনেতা জানালেন- আমার দেশ, আমি তো এখানেই থাকবো। শাকিব আরও বলেন, দারুণ কিছু অভিজ্ঞতা নিয়ে দেশে এলাম। তবে এই নয় মাস দেশের মানুষের ভালোবাসা অনেক মিস করেছি।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিভিন্ন অভিজ্ঞতা নিয়ে এসেছেন শাকিব। সেগুলো কাজে লাগাবেন পরবর্তী প্রজেক্টগুলোতে। জানালেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দেশের সিনেমাকে কীভাবে তুলে ধরতে হয়, সেটা নিয়েও নিয়মিত কাজ করছেন।

এর আগে, গত বছরের নভেম্বরে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রে যান শাকিব খান। এরপর টানা নয় মাস সেখানেই থেকেছেন। এরই মধ্যে হাতে পেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন কার্ড। এতো দিন শাকিব কোনো শুটিং করেননি। নিজের সঙ্গে বোঝাপড়া করেছেন। নতুন পরিকল্পনা করেছেন।

বিরতি প্রসঙ্গে শাকিব বলেন, এই বিরতির প্রয়োজন ছিল। নিজের জীবনদর্শন, বাস্তবতা ও সবকিছুকে নতুন করে চেনা-জানা এবং বোঝার জন্য এই পরিবর্তন ভীষণ প্রয়োজন ছিল। এ সময়ে জীবনের সবকিছু নতুন করে কল্পনায় এঁকেছি। এ সময়টা আমায় পৃথিবী ও নিজের সম্পর্কে নতুন করে ভাবতে সাহায্য করেছে।

দেশে ফিরে তপু খান পরিচালিত ‘লিডার- আমিই বাংলাদেশ’ সিনেমার বাকি থাকা একটি গানের শুটিং করবেন শাকিব। যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার আগে সিনেমাটির অন্যান্য অংশের শুটিং শেষ করেছিলেন তিনি। এ সিনেমায় তার সহশিল্পী হিসেবে আছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী শবনম বুবলী। এ ছাড়া সরকারি অনুদান পাওয়া ‘মায়া’ সিনেমার শুটিংয়েরও পরিকল্পনা আছে তার। কাজ শেষ করে আগামী নভেম্বরে আবারও যুক্তরাষ্ট্রে যাবেন শাকিব।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply