বরগুনায় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

|

বরগুনা প্রতিনিধি:

বরগুনায় জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান চলাকালীন আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুই পক্ষের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। ঘটনাস্থল থেকে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৫ আগস্ট) সকাল ১১টার দিকে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে এ ঘটনার সূত্রপাত ঘটে। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরই এক পর্যায়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন তারা। এ সময় পুলিশের গাড়িও ভাঙচুর করেন ছাত্রলীগের কর্মীরা। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠি চার্জ করে পুলিশ। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়।

এর আগে গত ২৪ জুলাই জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হলে নতুন কমিটি ও পদবঞ্চিত নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মাঝে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে আসছিল। এরই মধ্যে সোমবার শোক দিবসের আলোচনা সভায় যোগ দেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বরগুনা-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য অ্যাড. ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ও বরগুনা জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমানসহ জেলা পর্যায়ের
ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দ। এ সময় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল কবীর রেজা, সাধারণ সম্পাদক তৌশিকুর রহমান ইমরান, জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি সবুজ মোল্লা এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য রিশাত হাসান প্রিন্স ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে এলে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। শিল্পকলা একাডেমি থেকে সংঘর্ষ মুহূর্তেই গোটা শহরে ছড়িয়ে পড়ে।

সংঘর্ষের এক পর্যায়ে ছাত্রলীগের একটি অংশ রামদা ও ছেনিসহ বরগুনা শহরের লঞ্চঘাট চত্বর দখলে নেয়। পরে পুলিশ এসে লঞ্চঘাট থেকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সরিয়ে দেয়। এ সময় সেখান থেকে বেশ কিছু রামদা ও ছেনিসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় শহরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করা হয়েছে।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply