সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত মিথ্যা বলেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

|

ফাইল ছবি

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকা রাখার তথ্যের ব্যপারে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত মিথ্যা কথা বলেছেন বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত মিথ্যা কথা বলেছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ও অর্থ সচিব আমাকে বলেছেন, তারা সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকা সম্পর্কে তথ্য চেয়েছেন কিন্তু সুইজারল্যান্ড কোনো উত্তর দেয়নি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, এভাবে মিথ্যা কথা বলে পার পাওয়া ঠিক হচ্ছে না।

এর আগে, টাকা পাচারের তথ্য সংগ্রহের সব উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, সুইস ব্যাংকে অর্থ রাখার তথ্য জানতে সুইস ব্যাংকেও একাধিক বার চিঠি দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সাংবাদিককের সাথে আলাপকালে তিনি এই কথা জানান।

তিনি বলেন, কোনো ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে দেশের বাইরে টাকা গেলে তার তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংক জানতে পারে। কিন্তু ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে দিয়ে দেশের বাইরে টাকা গেলে সেই তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংক জানতে পারে না।

এর আগে, সুইস ব্যাংকে অবৈধ পথে বাংলাদেশিরা যেসব অর্থ জমা রেখেছেন বা পাচার করেছেন সেসব বিষয়ে সরকার ও দুদক কী পদক্ষেপ নিয়েছেন, সেটি স্বপ্রণোদিত হয়ে জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের কাছে এই প্রশ্ন রাখেন। আদালত প্রকাশিত সংবাদের রেফারেন্স টেনে জানতে চান কী পরিমাণ অর্থ সুইচ ব্যাংকে পাচার হয়েছে এবং এ বিষয়ে সরকার ও দুদক কী পদক্ষেপ নিয়েছে।

তাৎক্ষণিকভাবে এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষ বা দুদক কোনো তথ্য দিতে পারেনি আদালতকে। তাই আগামী রোববারের মধ্যে এ বিষয়ে কী কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা হাইকোর্টকে জানাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষকে।

প্রসঙ্গত, সুইজারল্যান্ড কালো টাকা রাখার স্বর্গরাজ্য নয় উল্লেখ করে বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড বুধবার (১০ আগস্ট) জাতীয় প্রেসক্লাবে ডিক্যাব টক অনুষ্ঠানে বলেন, সুইস ব্যাংকে অর্থ জমা নিয়ে নির্দিষ্ট করে কারও তথ্য সুইজারল্যান্ড সরকারের কাছে চায়নি বাংলাদেশ।

/এনএএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply