ইরানি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করলো রাশিয়া, ইউক্রেনে নজরদারি বাড়ানো নিয়ে জল্পনা

|

ছবি: সংগৃহীত

ইউক্রেনের সামরিক লক্ষ্যবস্তুতে নজরদারি বাড়াতে পারে রাশিয়া; এমন বিতর্কের মধ্যেই ‘খৈয়াম’ নামে ইরানি একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করেছে দেশটি। মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) কাজাখস্তান থেকে এটি উৎক্ষেপণ করা হয়, যা এরইমধ্যে কক্ষপথে পৌঁছেছে।

মস্কো-নিয়ন্ত্রিত কাজাখস্তানের বাইকোনুর কসমোড্রোমে বক্তৃতাকালে রাশিয়ান মহাকাশ প্রধান ইউরি বোরিসভ বলেছেন, এটি রুশ-ইরান দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক। এটি নতুন এবং আরও বৃহত্তর প্রকল্প বাস্তবায়নের পথ উন্মুক্ত করেছে।

উৎক্ষেপণের সময় উপস্থিত থাকা ইরানের টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ইসা জারেপুর ‘খৈয়াম উপগ্রহ’ উৎক্ষেপণকে ঐতিহাসিক এবং দুই দেশের মধ্যে মহাকাশের ক্ষেত্রে একটি নতুন মিথস্ক্রিয়া শুরুর টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে অভিহিত করেছেন।

ইউক্রেনে আক্রমণ শুরুর পরই একের পর এক পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হচ্ছে রাশিয়া। বাড়ছে আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতা। তাই হুমকির মুখে পড়া মহাকাশ কর্মসূচির জন্য মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া এবং আফ্রিকার দিকে ঝুঁকছে দেশটি। আর ইউক্রেনে আক্রমণ শুরুর পর থেকে রাশিয়ার সমালোচনা থেকে বরাবরই বিরত ছিল ইরান। মস্কোর সাথে এ সময়ে সুসম্পর্ক বজায় রেখেছে তেহরান।

গত সপ্তাহে ওয়াশিংটন পোস্ট বেনামী পশ্চিমা গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে বলেছে, ইরানকে নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব দেয়ার আগে ইউক্রেনে নজরদারি বাড়াতে স্যাটেলাইটটি ব্যবহার করার পরিকল্পনা করছে রাশিয়া।

তবে ইরান স্পেস এজেন্সি (আইএসএ) বলেছে, সয়ুজ-২.১বি রকেটে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের দুই ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে, ‘ইরান স্পেস এজেন্সির গ্রাউন্ড স্টেশন’ ‘প্রথম টেলিমেট্রিক ডেটা’ পেয়েছে। ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনের প্রতিক্রিয়ার গত রোববারই ইরান জানিয়েছিল, প্রথমদিন থেকেই স্যাটেলাইটের নিয়ন্ত্রণ নিবে তারা।

ইরান জানিয়েছে, এনক্রিপ্ট করা অ্যালগরিদমের কারণে কোনো তৃতীয় দেশই স্যাটেলাইটের পাঠানো তথ্য অ্যাক্সেস করতে পারবে না। খৈয়ামের উদ্দেশ্য হচ্ছে, দেশের সীমানা নিরীক্ষণ করা, কৃষি উৎপাদনশীলতা বাড়ানো এবং জলজ সম্পদ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ পর্যবেক্ষণ করা।

জেডআই/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply