অপারেশন ব্রেকিং ডাউনে সাফল্যের দাবি তেল আবিবের

|

যেকোনো মুহুর্তে লঙ্ঘিত হতে পারে অস্ত্রবিরতি। এই আতঙ্ক নিয়েই ধ্বংসস্তুপে পরিণত হওয়া ঘরবাড়িতে ফিরছেন ফিলিস্তিনের গাজাবাসী। সংস্কারকাজে হাত দিলেও স্থানীয়দের চোখে একরাশ অনিশ্চয়তা; নেই পর্যাপ্ত চিকিৎসা সুবিধাও।

উপত্যকাটির এক বাসিন্দা বলেন, গেলো কয়েক বছরে ৩টি বড় সংঘাত পার করেছি আমরা। প্রতিবারই বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঘরবাড়িতে চালানো হয় হামলা। চরম আতঙ্ক ও মৃত্যুঝুঁকি নিয়ে সন্তানদের নিয়ে পালাই। আবারও ফিরে এসে করি সংস্কার। কিন্তু বারবার কেনো আমরাই টার্গেট?

দেশটির আল শিফা হাসপাতালে সবচেয়ে বেশি রোগী ভর্তি বলে জানানো হয়েছে। হাসপাতালটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যেকোনো মুহুর্তে হামলা আতঙ্কে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আনা যাচ্ছে না। ৩০ শতাংশ জরুরি ওষুধ, এক্স-রে এবং চিকিৎসা সরঞ্জামের রয়েছে ঘাটতি।

রাফাহ ক্রসিংও খুলে দিয়েছে ইসরায়েল। সীমিত করে পরিবহন করা হচ্ছে জরুরি নিত্যপণ্য। তবে, মানা হচ্ছে কঠোর নিরাপত্তা।

এমন পরিস্থিতির মধ্যেই ইসলামিক জিহাদের বিরুদ্ধে চালানো সামরিক অভিযান শতভাগ সফল, এমন দাবি করলেন ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী ইয়ার লাপিদ। জানালেন, ইহুদিদের নিরাপত্তা তার সরকারের একমাত্র মাথাব্যাথা। হুঁশিয়ারি দেন, ইহুদিদের ওপর বিন্দুমাত্র আঁচড় এলেও দেয়া হবে মোক্ষম জবাব।

ইয়ার লাপিদ বলেন, ইসরায়েলের নিরাপত্তা ওপর হুমকি কমিয়েছে ‘অপারেশন ব্রেকিং ডাউন’। অর্জিত হয়েছে আমাদের কাঙ্খিত লক্ষ্য। গেলো ৩ দিনে গাজা উপত্যকায় ইসলামিক জিহাদের শীর্ষ নেতাদের হত্যা করা হয়েছে। হার স্বীকার করেছে শত্রুপক্ষ। অভিযান পরিচালনার সময় নিরীহ গাজাবাসীর ক্ষতিসাধন এড়ানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। তবে, ইহুদিদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে যেকোন পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত ইসরায়েল।

এদিকে, সন্ত্রাসবাদ বিরোধী এই অভিযানের কঠোর নিন্দা জানিয়েছে তুরস্ক। প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের হুমকি, শিশু হত্যাকারীদের শাস্তি পেতেই হবে।

রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেন, শিশুহত্যার কোনো মাফ নেই। দোলনায় থাকা শিশুকে হত্যার যেই অজুহাত-ই দেয়া হোক না কেনো, সেটি অপরাধ। গাজা উপত্যকাকে লক্ষ্যে পরিণত করা এবং বেসামরিক বাসিন্দাদের ওপর হামলা চালানোর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। বরাবরই ফিলিস্তিন এবং মুসলিম ভাইয়ের পক্ষে তুরস্ক।

গেলো বৃহস্পতিবার থেকে গাজা উপত্যকায় হামলা চালায় ইসরায়েলি সেনাবহর। অজুহাত ছিল, সশস্ত্র সংগঠন ইসলামিক জিহাদকে নির্মূল। তাতে প্রাণ হারান ৪৬ ফিলিস্তিনি এবং আহত ৩৬০ জনের বেশি। পাল্টাপাল্টি হামলায় ৭০ ইসরায়েলিও আহত হয়েছেন।

সূত্র: রয়টার্স, এপি।
/এমএন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply