ঘনঘন জ্বরকে অবহেলা নয়, হতে পারে জটিল রোগের প্রথম লক্ষণ

|

ছবি: সংগৃহীত।

ঘনঘন জ্বর আসা শরীরের অভ্যন্তরে সৃষ্ট নানা রকমের জটিলতার প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে। কী কারণে এমন হচ্ছে তা বোঝার জন্য জ্বরের লক্ষণ এবং পরীক্ষা-নীরিক্ষা করা হয়। তবে এই ঘনঘন জ্বর আসার অন্যতম কারণ হতে পারে কিডনিতে পাথর জমা।

যদিও কিডনির সমস্যা হচ্ছে কিনা তা বুঝতে সাধারণত শরীরের চাহিদা অনুযায়ী পানি খাওয়ার পরিমাণ ঠিক আছে কিনা, তলপেটে কোনো ব্যথা হচ্ছে কিনা বা মূত্রত্যাগের সময় কোনো জ্বালা হচ্ছে কিনা এগুলো দেখা হয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে পাথর জমেছে কিনা তা এতো সহজে বোঝা যায় না।

চিকিৎসকদের মতে, কিডনিতে পাথর কোথায় সৃষ্টি হয়েছে এবং কতগুলো হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করে লক্ষণ প্রকাশ পায়। যদি খুব ছোট আকারের অল্প কয়েকটি পাথর থাকে, তাহলে অনেক সময় কোনো লক্ষণ বোঝা যায় না। তবে সংখ্যায় বেশি হলে বা আকারে বড় হলে অবশ্যই স্পষ্ট কিছু উপসর্গ থাকে।

কিডনির সমস্যা হলে সবার আগে প্রভাব পড়বে মূত্রে। এ সময় মূত্রের রং বদলে লালচে বা বাদামি রং ধারণ করতে পারে। অনেকের ক্ষেত্রেই কিডনিতে পাথর জমলে কোমরের ব্যথা শুরু হয়। যদিও নানা কারণেই কোমর ও তলপেটে ব্যথা হতে পারে। তবে মূত্রত্যাগের সময়ে জ্বালা, রঙের বদল এবং একই সাথে কোমর ও তলপেটে ব্যথা থাকলে সচেতন হওয়া দরকার। ঘনঘন জ্বর আসলে এ সময় সবচেয়ে বেশি সতর্ক থাকতে হবে। কিডনিতে পাথর জমলে জ্বরের সঙ্গে ঘন ঘন বমিও হতে পারে।

এ সমস্ত লক্ষণ প্রকাশ পেলে সাথে সাথেই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। নির্দিষ্ট কিছু পরীক্ষা-নীরিক্ষার মাধ্যমে সমস্যা চিহ্নিত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলতে হবে।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply