বাঁহাতি স্পিনার ছাড়া খেলাই কি টাইগারদের দিশেহারা বোলিংয়ের কারণ?

|

ছবি: সংগৃহীত

গত ২৪ বছরে ওয়ানডে ক্রিকেটে নিজেদের জেতা ম্যাচের মাত্র দু’টিতে কোনো বাঁহাতি স্পিনার খেলেনি বাংলাদেশ দলে। জেতা ম্যাচে নেয়া সর্বমোট উইকেটের ৩৬ শতাংশই রফিক-রাজ্জাক-সাকিব-তাইজুলদের। অথচ, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে একাদশে ছিলেন না কোনো বাঁহাতি স্পিনার। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাঁহাতি স্পিনারদের বিরুদ্ধে ৮০ শতাংশের বেশি ডট বল দেয়া সিকান্দার রাজার সামনে অসহায় ছিলেন বাংলাদেশের ডানহাতি অফব্রেক বোলাররা।

সাদা বলের ক্রিকেটে বাঁহাতি স্পিনেই এসেছে বাংলাদেশের অধিকাংশ সাফল্য। ওয়ানডে ক্রিকেটে নিজেদের জেতা ১৪২টি ম্যাচের মাত্র দু’টি ম্যাচে বোলিং করেনি কোনো বাঁহাতি স্পিনার। জেতা ম্যাচে সর্বশেষ ২০১৯ সালে ডাবলিনে কোনো বাঁহাতি স্পিনার খেলায়নি মাশরাফী বিন মুর্তাজার দল। এর আগে, ২০১৮ এশিয়া কাপে পাকিস্তানের সাথেও বল করেননি কোনো বাঁহাতি স্পিনার। অবশ্য সেই ম্যাচে দলে ছিলেন মুমিনুল হক।

ওয়ানডে ক্রিকেটে জেতা ম্যাচে নেয়া ১২১১টি উইকেটের মধ্যে ৪৩৬টিই এসেছে বাঁহাতি স্পিন থেকে; শতাংশের হিসেবে যা দাঁড়ায় ৩৬ শতাংশ।

বাংলাদেশের ক্রিকেট সংস্কৃতিতে বাঁহাতিদের যখন এত দাপট, তখন হঠাৎই জিম্বাবুয়ের সাথে প্রথম ওয়ানডেতে একাদশে কোনো বাঁহাতি স্পিনার ছাড়া খেলতে নামলেন তামিম ইকবাল। ফ্রন্টলাইন স্পিনারসহ বাকি ৩ স্পিন বোলিং অপশনের সবাই ছিলেন ডানহাতি অফব্রেক বোলার। আর এই সুযোগকেই দু’হাত ভরে নিলেন সিকান্দার রাজা। মিড উইকেট এবং লং অন দিয়ে জিম্বাবুয়ের এই ইনফর্ম ব্যাটার রান নিয়েছেন ৪৫, যার বেশিরভাগই ডানহাতি অফব্রেকের ভেতরে ঢোকা বলে সিঙ্গেল নিয়ে।

সিকান্দার রাজাকে বিশ্লেষণে ভুল করার মাশুল টাইগাররা গুনেছে ম্যাচ হেরে। ছবি: সংগৃহীত

বছরের বেশিরভাগ সময় বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেট খেলা রাজাকে বিশ্লেষণ করতেও ভুল করেছে বাংলাদেশ। পরিসংখ্যান বলে, বাঁহাতি বোলারদের বিরুদ্ধে রাজার ব্যাটিং গড় ১.৫! আর স্ট্রাইক রেটও মাত্র ১৮.৮। ডট বল খেলার হার ৮১.২। সেই রাজাকে চ্যালেঞ্জ করার মতো ছিলেন না কোনো বাঁহাতি স্পিনার।

অস্বীকার করার উপায় নেই, বাংলাদেশের ব্যাটারদের স্লো অ্যাপ্রোচে বেশ কিছু রান কম হয়েছে ব্যাটিংয়ে। তারপরও জিম্বাবুয়ের সাথে ৩০২ রান আটকাতে না পারার পেছনে টিম সিলেকশনে একজন বাঁহাতি স্পিনার না থাকাও বড় প্রভাবক। কারণ, বাঁহাতের খেল দেখিয়েছেন রফিক-সাকিবরা, কিছু জায়গায় ডানহাতে এখনো কাঁচা রয়ে গেছেন বাংলাদেশের স্পিনাররা।

আরও পড়ুন: জিম্বাবুয়ে যাচ্ছেন এবাদত ও নাঈম শেখ

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply