চলে গেলেন ‘বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষ’ পাবনার আহসান

|

পাবনা প্রতিনিধি
‘বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষ’ পাবনা জেলার ফরিদপুর উপজেলার বিএল বাড়ী গ্রামের আলহাজ্ব আহসান উদ্দিন শাহ আর নেই। গতকাল মঙ্গলবার তিনি তার গ্রামের বাড়ীতে ইন্তেকাল করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ১২৬ বছর বলে তার পরিবারের দাবী। মৃত্যুকালে তিনি এক স্ত্রী ও ১৪ (সাত ছেলে ও সাত মেয়ে) রেখে গেছেন। ইন্দোনেশিয়ায় সোদিমেদজো নামের ১৪৬ বছরের সবচেয়ে বেশী বয়সী ব্যক্তিটি ২০১৭ সালে মারা যাওয়ার পর এখন তিনিই ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষ’ বলে ধারণা করা হয়। ১৮৯২ সালের শীতের কোন এক মাসের কোনও একদিন তিনি জন্ম গ্রহণ করেন।

আহসান উদ্দিন শাহের ছোট ছেলে সাংবাদিক গোলাম মওলা বলেন, ‘আমার বাবার দীর্ঘ জীবন পরিক্রমায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির আমুল পরিবর্তন যেমন দেখেছেন, তেমনি তিনটি শতক দেখা এই প্রবীণের জীবদ্দশায় বৃটিশ সরকার, পাকিস্তান সরকার ও বাংলাদেশ সরকারের শাসন দেখেছেন। এই দীর্ঘজীবনের জন্য তিনি কৃতিত্ব দিয়েছেন নিয়ন্ত্রিত জীবন এবং খাদ্যাভাস। ছোট বেলা থেকেই তিনি নিয়মিত গরুর দুধ পান করেন। তার প্রিয় খাবার ছিল দুধ কলা ভাত।

মহান মুক্তিযুদ্ধের আগেই তার প্রথম স্ত্রী মারা যান। সে সময় তার ঐ স্ত্রীর ৪ ছেলে ৪ মেয়ে ছিল। পরবর্তিতে ১৯৬৯ আবার বিয়ে করেন। স্বাধীনতার আগ পর্যন্ত দুই স্ত্রীর ৫ ছেলে ও ৪ মেয়েসহ মোট ৯ সন্তান জন্ম দেন। স্বাধীনতার পর থেকে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত তিনি আরও ২ ছেলে ও আরও ৩ মেয়েসহ মোট ৫ সন্তানের পিতা হন। সব মিলিয়ে ১৯৮৭ সালে তিনি ১৪ সন্তানের জনক হন। তার দ্বিতীয় স্ত্রী এখনও জীবিত।

সাংবাদিক গোলাম মওলা আরও বলেন, ‘আমার বয়স চল্লিশ। এমনকি আমার জন্মের আগেই আমি দাদা ও নানা হয়েছি’। গোলাম মওলা বলেন, সবার বড় তার দুই বোন হলো আয়শা খাতুন এবং আনোয়ারা খাতুন আনু। এদের বয়স যথাক্রমে ৯৫ এবং ৯০। আয়শা খাতুনের বড় ছেলে অর্থাৎ আমার বড় ভাগিনা আশরাফ উদ্দিনের বয়স ৮০ বছরের কাছাকাছি।

গত বছরের মে মাসে ইন্দোনেশিয়ায় সোদিমেদজো নামের ১৪৬ বছর সবচেয়ে বেশী বয়সী ব্যক্তিটি মারা যান। ফলে ধারণা করা হচ্ছে, পাবনার আহসান উদ্দিন শাহ ছিলেন তার পরেই পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বয়স্ক মানুষ।

গতবছর আলাপকালে আহসান উদ্দিন শাহ জানিয়েছিলেন ‘আমার বয়স কত হয়েছে তা সঠিক বলতে পারবো না। তবে পাবনার ঈশ্বরদীর পাকশীতে যখন হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণ করা হয় তখন আমার বয়স ছিল ২২ থেকে ২৩ বছরেরও কাছাকাছি। ১৯০৮ সালের দিকে বৃটিশ শাসিত ভারত সরকার ঈশ্বরদী-সিরাজগঞ্জ রেলপথ তৈরির কাজ শুরু করে। তিনি ঐ সময় আরও বলেছিলেন, ঈশ্বরদী-সিরাজগঞ্জ রেলপথ তৈরির সময় তিনি ও তার বন্ধুরা সেখানে অনেক আড্ডা দিয়েছেন। রেল লাইনের জন্য যখন মাটি কাটা শুরু হয়, তখন তিনি তার বন্ধুদের সঙ্গে ওই রাস্তার ওপর ডাঙ্গুলি খেলেছেন। সেখানে গরু চড়িয়েছিয়েন। তিনি আরও বলেন, ওই সময় আমাদের চোখের সামনে কালো রঙ্গের মহিলারা (নারী শ্রমিকরা) জমি থেকে মাটি কেটে রাস্তা উচু করেছে। তারপর সেখান দিয়ে রেল পথ স্থাপন করা হয়েছে’।

ফরিদপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সরকার ও পৌরসভার মেয়র কামরুজ্জামান মাজেদ বলেন, ‘আমরা যতদুর জানি বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষ ছিলেন আমাদের ফরিদপুর উপজেলার বিএল বাড়ী গ্রামের আহসান উদ্দিন শাহ। তার বয়স হয়েছিল ১২৬ বছর’।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply