সামনে এলো রাবির ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি চক্রের তথ্য, ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ

|

প্রক্সি দিতে এসে আটককৃতরা (বামে), ছাত্রলীগ নেতা তন্ময় (ডানে)।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) অন্যের হয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসে আটক হয় রাবির ফোকলোর বিভাগের ছাত্র বায়েজিদ খান। তার দেয়া তথ্যের সূত্র ধরে কেঁচো খুঁড়তে যেন সাপ বেরিয়ে এসেছে। গত ২৬ জুলাই নিজের ক্যাম্পাসে এ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে গিয়ে আটক হন তিনি। বায়েজিদের দেয়া তথ্য বলছে, শুধু রাজশাহীতেই নয়, আরও কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আর নিয়োগ পরীক্ষায় চলে এই কারবার। রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তন্ময় এই সিন্ডিকেটের মূল নিয়ন্ত্রক বলে জানা গেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তদন্তে নেমে তার ব্যাংক হিসাবে পেয়েছে অস্বাভাবিক লেনদেন।

তদন্তে জানা গেছে, রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তন্ময়ের অনুসারীরা ৫ থেকে ৬ লাখ টাকার বিনিময়ে অন্যের হয়ে পরীক্ষার হলে বসে। আটক বায়েজিদ খানের বিষয়ে রাবি ছাত্রলীগের প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক আসাদুল্লাহ-হিল-গালিব বলেন, তন্ময়ের ঘনিষ্ঠ বায়েজিদ খান। তাকে দিয়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা এবং নিয়োগ পরীক্ষা দেয়ায় সে। এর আগেও এভাবে পরীক্ষা দিয়েছে বায়েজিদ।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রণী ব্যাংক শাখায় তন্ময়ের সঞ্চয়ী হিসাব রয়েছে। সেখানে অস্বাভাবিক লেনদেনেরও হদিস মিলেছে। তার রাজনৈতিক সহকর্মীদের দাবি, এই টাকা এসেছে প্রক্সি কারবার থেকে। বিষয়টি নিয়ে আসাদুল্লাহ-হিল-গালিব বলেন, রাবি শাখা থেকে তন্ময়ের অ্যাকাউন্টে ৪২ লক্ষ টাকার লেনদেন হয়েছে। একজন ছাত্র নেতা যতো ধনী পরিবারেরই সন্তান হোক, একটি অ্যাকাউন্ট থেকে ৪২ লক্ষ টাকার লেনদেন হতে পারে না।

রাবির আবাসিক শাহ মখদুম হলে থাকতেন তন্ময়। বায়েজিদ আটকের পর থেকেই লাপাত্তা তিনি। এরই মধ্যে তার কয়েকজন অনুসারীও গা ঢাকা দিয়েছেন। রাবি ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল করিম বলেন, তন্ময়কে পাওয়া যাচ্ছে না। তার রুমে পক্সি দেয়া লোকজনের আনাগোনা বিভিন্ন সময় আমরা দেখেছি।

তন্ময়ের বিরুদ্ধে দ্রুতই রাবি ছাত্রলীগ থেকে সাংগঠিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে ছাত্র নেতারা। সেই সাথে প্রশাসনকে এ ঘটনার সঠিক তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধও জানান তারা।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, প্রশাসনের তদন্তে তার দোষ যদি প্রমাণিত হয় তাহলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার বিরুদ্ধে সবরকম ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এবারের ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি সিন্ডিকেটের বায়েজিদসহ ৫ জনকে দণ্ড দিয়েছে প্রশাসন। তাদের মধ্যে এক নারী শিক্ষার্থীর ব্যাংক অ্যাকাউন্টেও অস্বাভাবিক লেনদেনের প্রমাণ পেয়েছে তদন্তকারী সংস্থা।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply