‘বিকারগ্রস্ত’ ট্রাম্পই আমাদের পরমাণু কর্মসূচির প্রেরণা’

|

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘বিকারগ্রস্ত’ বলে অভিহিত করে উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন বলেছেন, ট্রাম্পই পিয়ংইয়ংয়ের পরমাণবিক কর্মসূচির প্রেরণা। কোরিয়াকে হুমকি দেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে চরম মূল্য দিতে হবে বলেও সতর্ক করেন কিম জং উন।

আজ শুক্রবার এক বিবৃতিতে একথা বলেন তিনি। জাতিসংঘে মার্কিন প্রেসিডেন্টের আগ্রাসী ভাষণের জবাবে এবার প্রশান্ত মহাসাগরে হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন কিম জং উন সরকার।

এদিকে দুই দেশের নেতাদের মধ্যে উত্তপ্ত মন্তব্য পাল্টা মন্তব্যের মধ্যেই উত্তর কোরিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে নতুন এক নির্বাহী আদেশে সই করেছেন মার্কিন প্রেসডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

নতুন করে হাড্রোজেন বোমা পরীক্ষার হুমকির বিষয়ে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে নিউইয়র্কে থাকা উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং হো বলেন, বিবৃতিতে কিম জং উন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ পর্যায়ের হামলার হুমকি দিয়েছেন। সেটা কেমন হবে তা তিনিই নির্ধারণ করবেন। তবে শিগগিরই প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে সবচেয়ে শক্তিশালী হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা চালাবে পিয়ংইয়ং।

কোরীয় নেতার এমন আগ্রাসী বক্তব্যে ক্ষুব্ধ জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া। জাতিসংঘে দেয়া ভাষণে পরমাণু কর্মসূচ থেকে সরে আসতে পিয়ংইয়ংয়ের প্রতি আহ্বান জানান দক্ষিণ কোরীয় প্রেসিডেন্ট।

দেশটির প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন বলেন, পরমাণু কর্মসূচি থেকে সরে আসা প্রয়োজন পিয়ংইয়ংয়ের। আমরা উত্তর কোরিয়ার ধ্বংস চাই না। সঠিক পথে ফিরতে চাইলে তাদের সহায়তা দেয়া হবে। কিন্তু উস্কানি বন্ধ না হলে আরো কঠোর নিষেধাজ্ঞা আনা প্রয়োজন।

এ বিষয়ে সিউল ও বেইজিং কিছুটা নমনীয় হলেও আগের অবস্থানে অটল যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘে এক বৈঠকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, পরমাণু অস্ত্র দিয়ে টিকতে পারবে না উত্তর কোরিয়া। যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের হুমকি দিয়ে নিজেদের নিরাপদ রাখা যাবে না। তাদের আগ্রাসী আচরণের জবাব দেব আমরা।

/কিউএস




Leave a reply