রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর ৫ প্রস্তাব

|

রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে দ্রুত ও কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সাধারণ পরিষদের ভাষণে রাখাইন পরিস্থিতি নিয়ে পাঁচ দফা প্রস্তাবনা তুলে ধরেন তিনি। যাতে নিঃশর্তে এবং চিরতরে মিয়ানমারে জাতিগত নিধন বন্ধের দাবি রয়েছে। পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মর্যাদার সাথে ঘরে ফেরার ব্যবস্থা করার দাবিও তোলেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতিসংঘের ৭২ তম সাধারণ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী ভাষণ দেন বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ভোরে। বরাবরের মতো মাতৃভাষা বাংলায় কথা বলেন শেখ হাসিনা। এবার, তার বক্তব্যের বড় অংশজুড়েই ছিল, চলমান রোহিঙ্গা সংকট। প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিরাপদে রোহিঙ্গাদের ঘরে ফেরার ব্যবস্থা করতে হবে।

রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের ওপরও জোর দেন প্রধানমন্ত্রী। এ লক্ষ্যে জাতিসংঘে পাঁচটি প্রস্তাব তুলে ধরেন তিনি। প্রস্তাবগুলো হলো:

প্রথমত, অনতিবিলম্বে এবং চিরতরে মিয়ানমারে সহিংসতা ও জাতিগত নিধন নিঃশর্তে বন্ধ করা;

দ্বিতীয়ত, অনতিবিলম্বে মিয়ানমারে জাতিসংঘের মহাসচিবের নিজস্ব একটি অনুসন্ধানী দল প্রেরণ করা;

তৃতীয়ত, জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকল সাধারণ নাগরিকের নিরাপত্তা বিধান করা এবং এ লক্ষ্যে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে সুরক্ষা বলয় গড়ে তোলা;

চতুর্থত, রাখাইন রাজ্য হতে জোরপূর্বক বিতাড়িত সকল রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে তাদের নিজ ঘরবাড়িতে প্রত্যাবর্তন ও পূনর্বাসন নিশ্চিত করা;

পঞ্চমত, কফি আনান কমিশনের সুপারিশমালার নিঃশর্ত, পূর্ণ এবং দ্রুত বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা।

অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যখাতে অগ্রগতির খতিয়ানের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে উঠে আসে ফিলিস্তিন সংকট, জলবায়ু পরিবর্তন, সন্ত্রাসবাদের মতো বৈশ্বিক ইস্যু। সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় তিনটি প্রস্তাবও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। এগুলো হলো,

এক, সন্ত্রাসীদের অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করতে হবে

দুই সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন বন্ধ করতে হবে; এবং

তিন, শান্তিপূর্ণ উপায়ে আন্তর্জাতিক বিবাদ মীমাংস করতে হবে।

শান্তি প্রতিষ্ঠায় জাতিসংঘের ভূমিকার প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। সংস্থাটির দুটি তহবিলে ২ লাখ ডলার অনুদানের ঘোষণাও দেন তিনি। সবার প্রতি আহবান জানান, সহিংসতা পরিহার করার। বলেন, আমরা যুদ্ধ চাই না শান্তি চাই। আমরা অর্থনৈতিক উন্নতি চাই, মানব ধ্বংস নয়, মানবকল্যাণ চাই।বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে এই নিয়ে রেকর্ড ১৪ বার জাতিসংঘে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।









Leave a reply