৫০০ টাকায় ইউরোপের ভুয়া ভিসা; ৬ সদস্য গ্রেফতার

|

মাত্র ৫০০ টাকা খরচ করে তৈরি করা জাল ভিসায় ইউরোপ যাচ্ছে মানুষ। শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও। ঘটনা সত্য। সম্প্রতি রাজধানীতে এমনই এক জালিয়াত চক্রের সন্ধান পেয়েছে গোয়েন্দারা। চক্রটি এমন জাল ভিসা দিয়েই ঢাকাসহ বিভিন্ন বিমানবন্দরের কর্মকর্তাদের সাথে চুক্তি করে মানুষকে পশ্চিমা বিভিন্ন দেশে পাঠিয়ে দেয়। ডিবি পুলিশ বলছে, এদের সাথে আন্তর্জাতিক মানবপাচার চক্রের যোগসূত্র রয়েছে।

কম্পিউটারের ফটোশপে শুধুমাত্র নাম, ঠিকানা, ছবি আর পাসপোর্ট নম্বর পরিবর্তন করে প্রিন্ট দিলেই বেরিয়ে আসে পশ্চিমা বিভিন্ন দেশের ভিসা। আর এই জাল ভিসা দেখিয়েই যারা ইউরোপ আমেরিকা যাওয়ার স্বপ্নে বিভোর তাদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে কয়েকটি চক্র।

চক্রের সদস্যরা জানায় তারা জাল ভিসায় বিদেশে পাঠাচ্ছে মানুষ। এই জালিয়াতিতে বিমানবন্দরের কিছু অসাধু কর্মকর্তাদেরও যোগসাজস রয়েছে। রাজধানীতে এমন চক্রের ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে, গোয়েন্দা পুলিশ।

কর্মকর্তারা জানান, সাধারণত ইউরোপ-আমেরিকা যেতে মরিয়া ব্যক্তিদের টার্গেট করে চক্রটি। আর জাল ভিসা দেখিয়ে হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা। এসব চক্রের পেছরে আর কারা কারা আছেন, তাদেরও আইনের আওতায় আনার কথা জানান কর্মকর্তারা।

ডিএমপি ডিসি (ডিবি, গুলশান) মশিউর রহমান জানান, রাজধানীর মিরপুর-উত্তরা প্রভৃতি জায়গায় ছোট ছোট খুপরি ঘরে কম্পিউটার দিয়ে বিভিন্ন দেশের ভিসা বানিয়ে পাসপোর্টে প্রিন্ট করে দেয়। মানুষরা তো বোঝে না যে এটা আসল কী না। অধিকাংশ মানুষই ইন্টারনেট বা দূতাবাসে গিয়ে এটা ভেরিফাইয়ের সুযোগ পান না, আগেই সরল বিশ্বাসে টাকা টাকা দিয়ে দেয়। এর পশ্চাতে কারা কারা আছে তা বের করার কথাও জানান এ কর্মকর্তা।

তিনি আরও বলেন, এরকম একটা ভিসা বানাতে খরচ লাগে মাত্র ২০ টাকা। এ কাজেই অনেকেই অ্যাডভান্স দিয়ে দেন ৭-৮ লাখ টাকা, এবং যদি ওইটা দিয়ে কখনও বিদেশে যেতে পারে তাহলে ওই পাসপোর্ট দিয়েই ১৫-১৬ লক্ষ টাকাও হাতিয়ে নেয় এ প্রতারক চক্র। বিমানবন্দর কেন্দ্রীক কোনো স্বায়ত্বশাসিত কর্মকর্তা-কর্মচারী এ কাজে জড়িত আছে কী না সেটা আমরা তদন্ত করবো।

/এনএএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply