যমুনা অববাহিকায় নেই তাঁতের চিরচেনা খটখট শব্দ

|

যমুনার পানি বৃদ্ধির প্রভাবে সিরাজগঞ্জের সদর, বেলকুচি, এনায়েতপুর ও শাহজাদপুর উপজেলার তাঁত পল্লিগুলোতে দেখা মিলবে না চিরচেনা দৃশ্যগুলোর। নেই তাঁতের চিরচেনা খটখট শব্দ। কারণ, কারখানাগুলো সবই এখন প্লাবিত বানের পানিতে। আর এ কারণেই দিশেহারা তাঁত শিল্প সংশ্লিষ্টরা। জেলার শতাধিক কারখানা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বেকার হয়ে পড়েছে অর্ধলাখ শ্রমিক, চরম ক্ষতির মুখে তাঁত মালিকরাও।

এ এলাকায় তলিয়ে গেছে শতাধিক কারখানার প্রায় ২০ হাজার তাঁত। করোনা মহামারির ক্ষতি কাটিয়ে না উঠতেই বন্যার এমন হানা যেন মরার ওপর খাড়ার ঘা। তবে তাঁত সংশ্লিষ্টদের দুর্দিন ঘোচাতে বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আনিসুর রহমান জানালেন, ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা করে তাঁত বোর্ড ও বানিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ক্ষতিপূরণের ব্যাবস্থা করা হবে।

প্রসঙ্গত, বন্যার কারণে বেকার হয়ে পড়েছে ৪ উপজেলার প্রায় ৫০ হাজার তাঁত শ্রমিক। তবে এখনও ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply