সমাহিত হলো কঙ্গোর প্রথম প্রধানমন্ত্রীর দাঁত

|

সমাহিত হলো কঙ্গোর জাতীয় বীরের একমাত্র স্মৃতিচিহ্ন। দীর্ঘ ৬১ বছর পর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাদের প্রথম প্রধানমন্ত্রী প্যাট্রিস লুমুম্বার দাঁত ফেরত পান দেশটির জনতা। এতদিন যা রক্ষিত ছিল বেলজিয়ামের কাছে। মধ্য আফ্রিকার দেশটির স্বাধীনতাকামী এ নেতার মরদেহ হত্যার পর অ্যাসিডে পুড়িয়ে ফেলা হয়। তাই একটি দাঁত ছাড়া আর কিছুই অবশিষ্ট ছিলো না তার। খবর বিবিসির।

তিনদিনের শোক পালন শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় কঙ্গোতে দাফন করা হলো সোনায় মোড়ানো একটি দাঁত। তবে, কঙ্গোবাসীর কাছে এটি শুধুই একটি দাঁত নয় যেন তাদের স্বাধীনতার প্রতীক। দেশটির জাতীয় বীর প্যাট্রিস লুমুম্বারের একমাত্র এবং শেষ স্মৃতিচিহ্ন এটি।

এই দাঁত পেতে অপেক্ষা করতে হয়েছে দীর্ঘ ৬১ বছর। কয়েক দশকের আইনি লড়াই শেষে বেলজিয়াম গত সপ্তাহে ফেরত দেয় কঙ্গোর জাতীয় বীরের শেষ চিহ্নটি।

১৯৬০ সালে ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করে মাত্র ৩৪ বছরে কঙ্গোর প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন লুমুম্বা। তবে কয়েকমাস পরই সেনা অভ্যুত্থানে ক্ষমতা হারান তিনি। এরপর ১৯৬১ সালে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হাতে দুই সঙ্গীসহ খুন হন এ নেতা। যাতে কোনো স্মৃতিচিহ্ন না থাকে তাই মরদেহ অ্যাসিডে পুড়িয়ে ফেলা হয়। সেখানে উপস্থিত থাকা বেলজিয়ামের এক পুলিশ কর্মকর্তা লুমুম্বার একটি দাঁত সরিয়ে নিজের কাছে রেখে দিয়েছিলেন।

দেশটির রাজধানী কিনশাসায় লুমুম্বার সম্মানে একটি সড়কের নামকরণ করা হয়েছে। সেখানেই সমাহিত করার আগে শেষকৃত্যে হাজার হাজার মানুষ জানান শ্রদ্ধা।

এটিএম/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply