বড়পর্দায় নারী রূপে পুরুষ অভিনেতারা

|

ছবি: সংগৃহীত

অভিনয়ের জন্য অভিনয়শিল্পীরা কতো কীই না করে থাকেন! কেউ ওজন বাড়ান, কেউ ঝরান। কেউ চুল কাটেন, কেউ দাঁড়ি গজান। আবার গল্পের প্রয়োজনে পুরুষ অভিনেতারা সাজেন নারীও। বলিউড হোক কিংবা হলিউড গল্পের প্রয়োজনে অভিনয়শিল্পীরা পর্দায় হাজির হয়েছেন বিপরীত লিঙ্গের চরিত্রেও।

চরিত্রের প্রয়োজনে কত কিছুই না করতে হয় রূপালি পর্দার অভিনেতা-অভিনেত্রীদের। কখনও গ্ল্যামারাস, কখনও ড্যাশিং আবার কখনও একেবারে সাধারণ লুকে হাজির হতে হয় অভিনয়শিল্পীদের। তবে চরিত্রের জন্য যদি প্রয়োজন হয় লিঙ্গ পরিবর্তনের, তখন? হ্যাঁ, এমনই অভিনেতাদের মধ্যে একজন শশী কাপুর।

ষাটের দশকের জনপ্রিয় সিনেমা ‘হাসিনা মান যায়েগি’তে যে মোহনীয় নারীকে দেখা গেছে তিনি আর কেউ নয়, হিন্দি সিনেমার অন্যতম সুদর্শন অভিনেতা শশী কাপুর। ক্যারিয়ারের শীর্ষে থাকা অবস্থায় পর্দায় নারী রূপে উপস্থিত হয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন এ অভিনেতা।

আশির দর্শকের জনপ্রিয় সিনেমা ‘লাওয়ারিশ’এ বলিউড শাহেনশাহ অমিতাভ বচ্চন হাজির হয়েছিলেন এমনই মজার এক চরিত্রে। নেচেছিলেন ‘মেরে আংগেনে মে’ গানটিতে। মূলত নারীর বেশে এমন হাস্যরসাত্মক উপস্থাপনাই গানটিকে তখন ব্যাপক জনপ্রিয় করে তোলে।

‘চাচি ৪২০’ এর কথা নিশ্চয়ই সবারই মনে আছে! চাচির ভূমিকায় কমল হাসান অভিনীত সিনেমাটি ছিল এ সুপারস্টারের ক্যারিয়ারের অন্যতম সুপারহিট সিনেমা। একই ধরনের চরিত্রে আন্টি নাম্বার ওয়ানসহ বেশ কয়েকটি সিনেমায় দেখা যায় কমেডি কিং গোবিন্দকেও।

নারীর সাজে এবং অঙ্গভঙ্গীতে রিতেশকে টেক্কা দিতে পারে এমন কেউ হয়তো বিটাউনে এখনও নেই। কমেডি সিনেমা ‘আপনা সাপ্না মানি মানি’ ও সাজিদ খান পরিচালিত ‘হামশাকালস’ সিনেমায় নারীর ভূমিকায় হাজির হয়ে সবাইকে তাক লাগিয়েছিলেন রিতেশ দেশমুখ। শুধু বলিউডই নয়, হলিউড অভিনেতারাও কিন্তু চরিত্রের প্রয়োজনে পর্দায় হাজির হয়েছেন নারী রূপে। রবিন উইলিইয়াম মিস্টার ডাউটফায়ার সিনেমায় নারী চরিত্রে অভিনয়ের এক নতুন ধারা নিয়ে আসেন।

পরবর্তীতে হোয়াইট চিকস সিনেমায় শন ও মারলন ওয়েন্সকেও দেখা যায় নারীর ভূমিকায়।  তবে এসব অভিনেতা শুধু তাদের চরিত্রের প্রয়োজনেই নিজেকে বদলায়নি বদলেছিলো সে সময়কার বক্স অফিসের চেহারাও।

/এসএইচ  





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply