উজানের ঢল ও বৃষ্টিতে প্লাবিত সুনামগঞ্জের নতুন নতুন এলাকা

|

সুনামগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি।

ভারী বৃষ্টি আর উজানের ঢলে সুনামগঞ্জে নদ-নদীর পানি বেড়ে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। আগে থেকেই যেসব এলাকা বানের জলে ডুবে ছিল, সেখানকার বাসিন্দাদের দুর্ভোগ আরও বেড়েছে। গতকাল (২৮ জুন) পর্যন্ত সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও একরাতের ব্যবধানে পানির উচ্চতা বেড়ে গেছে প্রায় ৩ ফুট।

বিশুদ্ধ পানি ও খাদ্য সংকটে ভুগছেন বানভাসি মানুষ। বাড়ছে পানিবাহিত রোগবালাই। প্রশাসনের তথ্য, জেলার ১২ উপজেলাতেই বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত উপজেলা দোয়ারাবাজারে ত্রাণ তৎপরতা জোরদার করেছে স্থানীয় প্রশাসন। সিলেটে খুব ধীরগতিতে নামছে কুশিয়ারার পানি। এতে তীরবর্তী জকিগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, বালাগঞ্জ ও ওসমানীনগরে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সংকটে বানভাসি মানুষ। এসব উপজেলার ২৮ হাজার মানুষ এখনও আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান করছে। অন্যদিকে, সিলেট সদর, বিশ্বনাথসহ ৭ উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে।

এদিকে, উজানের ঢলে উত্তরেও বাড়ছে নদ-নদীর পানি। লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম ও রংপুরে তিস্তার পানিতে প্লাবিত হয়েছে নিম্নাঞ্চল। নেত্রকোণা ও শেরপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরও উন্নতি হয়েছে। নেত্রকোণায় বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছে বানভাসিরা। তবে, ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় বিপাকে তারা।

আরও পড়ুন: হঠাৎ বেড়েছে জ্বর-সর্দি-কাশি, চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়ার তাগিদ

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply