সংসদে গেয়ে উঠলেন মমতাজ, আবৃত্তি করলেন নূর

|

ছবি: সংগৃহীত

সংসদে ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় পদ্মা সেতু এবং সরকার প্রধানকে নিয়ে আবৃত্তি করেন আসাদুজ্জামান নূর ও গান গেয়ে শোনান মমতাজ বেগম।

দেশের জনপ্রিয় লোক সংগীত শিল্পী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রথমে গেয়ে শোনান, ‘আমার নেত্রী শেখ হাসিনা যার তুলনা নাই/ এমন একজন নেত্রীর জন্য আমি দোয়া চাই।’

আলোচনার এক পর্যায়ে মমতাজ বলেন, এখন নারীরা শাড়ি-গয়না চায় না। এরপর তিনি গেয়ে ওঠেন, ‘চাই না গয়না, চাই না শাড়ি/ নৌকাতে ভোট না দিলে, যাব চলে বাপের বাড়ি।’

এরপর এই সাংসদ সাম্প্রতিক বিদেশ সফরের একটি কথা তুলে ধরলে সংসদের সবাই হেসে ওঠেন। সেই হাসিতে যোগ দেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও।

মমতাজ বলেন, সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার সিডনি ও মেলবোর্নে, আমার ‘পাঙ্খা পাঙ্খা’ গানের সাথে একটা মেয়ে নাচছিল। অনুষ্ঠান শেষে মেয়েটি আমার সাথে সেলফি তুলতে এলে আমি বলেছিলাম, সে নাচ শিখেছে কিনা? মেয়েটি আমাকে বলে, আপনি আমার বাবাকে চিনবেন। তিনি আপনার কলিগ। আমি জানতে চাইলাম, কে? মেয়েটি জানাল, তার বাবা বিএনপির সাংসদ হারুনুর রশীদ।

বক্তব্যের শেষের দিকে বিরোধী দলের দিক থেকে মমতাজকে আরও একটি গান গেয়ে শোনানোর অনুরোধ করা হয়। মমতাজ তখন বলেন, আরে, আপনি শুনতে চেয়েছেন, গাইব না? এরপর তিনি গেয়ে ওঠেন, ‘সবার আগে চিন্তা করলো শেখ হাসিনার সরকার/ যাতায়াতের উন্নয়নে পদ্মা সেতু দরকার।’

এর আগে সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর তার বক্তব্যের শেষে কবি কামাল চৌধুরীর ‘পদ্মা সেতু’ কবিতা থেকে কিছু অংশ আবৃত্তি করেন।

‘আমাদের এই গল্প শেখ হাসিনার হাতে এখন
ইতিহাস হয়ে গেছে
বহু বছর পরে আরেকটি বিজয় পার হয়ে যাচ্ছে
খরস্রোতা পদ্মা
নৌকা, ভাটিয়ালি, ফেরিঘাট, জাহাজের ভেঁপু ছুঁয়ে ছুঁয়ে স্বপ্নের দিকে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে দুই তীরের বন্ধন।’

/এনএএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply