মাদকবিরোধী অভিযানে আজও ১০ জন নিহত

|

সারাদেশে মাদক বিরোধী অভিযানে সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদির বেয়াইসহ ৭ জেলায় গুলিতে ১০ জন নিহত হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর দাবি-নিহতরা সবাই মাদক ব্যবসায়ী।

পুলিশ জানায়, সকালে কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ সড়কের দড়িয়া নগর এলাকায় সংসদ সদস্য বদির বেয়াই ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আকতার কামালের গুলিবিদ্ধ লাশ পাওয়া যায়।

গতরাতেই মহেশখালী থেকে মোস্তাক আহমদ নামে আরও এক ইয়াবা ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার হয়েছে। পুলিশের ধারনা প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত হয়েছে তারা।

রাজধানীর তেজগাঁও এ ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন কামরুল নামের একজন। র‍্যাব জানায়, তাদের একটি দল মাদকবিরোধী অভিযানে গেলে গোলাগুলি হয়। এতে কামরুল নিহত হয় বলে জানায় র‍্যাব। নিহত কামরুল ১৫টিরও বেশি মাদক ও অস্ত্র মামলার আসামী। সে তেজগাঁও রেললাইন বস্তি ও মহাখালী সাততলা বস্তি এলাকায় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত।

নেত্রকোণা সদরের মনাং এলাকায় পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা গেছে দুইজন। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, মাদক কেনাবেচা হচ্ছে এমন খবরে রাতে মনাং এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এসময় গোলাগুলিতে নিহত হয় দুইজন। ঘটনাস্থল থেকে ২টি পাইপগান ও মাদকদ্রব্য উদ্ধারের কথা জানিয়েছে পুলিশ।

ময়মনসিংহে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী রাজন। পুলিশ জানায়, রাত দেড়টার দিকে শহরের পুরহিত পাড়া রেলওয়ে কলোনি এলাকায় অভিযানে গেলে গুলি চালায় মাদক ব্যবসায়ীরা। এসময় গোলাগুলিতে মারা যায় রাজন।

কুমিল্লায় পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা গেছে তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী কামাল হোসেন। পুলিশ জানায়, রাতে বুড়িচংয়ের মহিষমারা এলাকায় গোলাগুলির সময় গুলিবিদ্ধ হয় কামাল। হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একজন নিহত হয়েছে। পুলিশের দাবি, অভিযান চালানোর সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে মাদক ব্যবসায়ীরা। পাল্টা জবাব দিলে নিহত হয় একজন। এ ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্য আহতের দাবিও করা হয়েছে। এছাড়া শেরপুরেও বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সাতক্ষীরায় কলারোয়া উপজেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ইউনুস আলী দালাল নামে একজন নিহত হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে সে এলাকার শীর্ষস্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী। রাত পৌনে দুইটার দিকে সোনাবাড়িয়া ইউনিয়নের রামকৃষ্ণপুর-বড়ালি গ্রামে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত ইউনুস উপজেলার দক্ষিণ ভাদিয়ালি গ্রামের আব্দুল্লাহ দালালের ছেলে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি ওয়ান শ্যুটার গান, দুই রাউন্ড গুলি ও ৭০ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে।

 









Leave a reply