দ. আফ্রিকার পানশালায় ২১ কিশোর-কিশোরীর মৃত্যু, রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে পুলিশ

|

এনিয়োবেনি পানশালা। ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ আফ্রিকার শহর ইস্ট লন্ডনের একটি পানশালায় ২১ কিশোর-কিশোরীর মৃত্যু রহস্যের কূলকিনারা করতে কাজ করে যাচ্ছে স্থানীয় পুলিশ। শহরের এনিয়োবেনি নামক পানশালায় ফরেনসিক টিম গিয়ে শুরু করেছে রহস্যের তদন্ত। খবর বিবিসির।

রোববার (২৬ জুন) ঘটে এই দুর্ঘটনা। জানা গেছে, মৃতদেহগুলোতে দৃশ্যমান আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। অনেকে বিষক্রিয়ার কথা বললেও সে বিষয়ে মেলেনি কোনো প্রমাণ। দক্ষিণ আফ্রিকার আবগারি বিভাগ জানিয়েছে, লাইসেন্স সংক্রান্ত নিয়ম ভাঙার কারণে পানশালাটির মালিককের বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগ আনা হবে।

নতুন তথ্য জানার চেষ্টায় পানশালায় ভিড় করছে ভুক্তভোগীদের পরিবারের সদস্যরা। ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হলেও ৫ জনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পরিবারগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে।

ছবি: সংগৃহীত

পুলিশ এখনও মৃতদের পরিচয় প্রকাশ না করলেও জানিয়েছে, ২১ জনের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠের বয়স ১৩ এবং সবচেয়ে যিনি বড় তার বয়স ১৭। মদ্যপানের জন্য দেশটিতে সর্বনিম্ন বয়স ১৮। তাই পানশালার মালিককে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

পানশালাটিতে সেদিন ছিলেন এমন এক কিশোরী বিবিসিকে জানিয়েছে, জায়গাটি ছিল মানুষের পূর্ণ। পার্টি চলছিল, তাই বিনামূল্যে চলছিল মদ্যপান। বাইরে যারা ছিল, তারাও জোর করে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করেছে। সম্পূর্ণ পরিস্থিতি সামাল দিতে ছিল কেবল দুজন বাউন্সার। সেই কিশোরী আরও বলেন, অনেককেই দেখতে পাচ্ছিলাম তারা অজ্ঞান হয়ে যাচ্ছে। ভেবেছি, অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণেই এমনটা হয়েছে। অনেকে বের হয়ে গেছে তখন, আমিও। আর এখন দেখতে পাচ্ছি, আমার বন্ধুরা আর বেঁচে নেই।

একটি পানশালায় কেন একইসাথে এত বেশি অপ্রাপ্তবয়স্কের জমায়েত ঘটলো; এর কারণ খুঁজে বের করতে গিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে পানশালাটির মালিক পার্টির ঘোষণা দিয়েছিলেন। স্কুল বন্ধ উপলক্ষে এই পার্টি অনুষ্ঠিত হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়। কিন্তু পার্টি শেষ হয় সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিতভাবে।

আরও পড়ুন: পাকিস্তানি প্রেমিকের সাথে দেখা করতে গিয়ে আটক ভারতীয় শিক্ষিকা

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply